করোনাভাইরাসে পৃথিবীর অসুখ আলোচনাটির নাম—চীনের জাদু ফর্মুলা।

0
874

সায়নী সরকারঃ- পৃথিবীর দুশোটির মতো দেশ আজ আক্রান্ত,মৃত্যুমিছিল বয়ে চলেছে অহরহ আর তারই মাঝে মজার বিষয় একটাই যে,চীনের ওহান শহর থেকে করোনা সারাবিশ্বভ্রমণ করলেও চীনের মেরুদন্ড দুটিশহর বেজিং ও সাংহাই তে ভ্রমণ করেনি ৷বোধহয় পাসফোর্ট বা ভিসা পায়নি ৷পৃথিবীর আর্থিক ,রাজনীতির কেন্দ্র বিন্দুগুলি প্যারিস,রোম,টোকিও,বার্লিন,দিল্লি,মুম্বাই,কোলকাতার বুকে যখন আজ নিস্তব্ধতা ,হাহাকার ঠিক একই সময় চীনের বেজিং ও সাংহাইতে আনন্দচ্ছাস ?কোনজাদু ফর্মুলা কাজ করল বলুন তো ?কে চাইবে চীনের কাছে জবাব ?শুরুর সময়ে ওহান প্রদেশে লোক দেখানো কিছু মৃত্যুমিছিল আর তারপর ধীরে ধীরে নিজেদের কন্ট্রোল করে নেবার মধ্যে তো নিশ্চই কোনো ফর্মুলা রয়েছে ,কি তাই নয় কি ?চীন এই মারণভাইরাস কে কিন্তু লকারে ঢুকিয়ে দিল ৷কিন্তু ফর্মুলাটা কি ?তা কিন্তু চীন জানায় নি ৷আমাদের দেশের প্রায় একশত তিরিশ কোটি মানুষ আজ লকডাউনে ,বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলোর বিখ্যাত কিছু মানুষও আজ এই মারণভাইরাসের স্বীকার ৷প্রত্যেক দেশের অর্থনীতি ক্রমশ নীচের দিকে নামছে ৷ঠিক এমতাবস্তায় আট এপ্রিল চীনের ওহান প্রদেশ হঠাৎই সুস্থ হয়ে গেল ৷একবার ভাবুন তো কি হতে পারে এর আসল রহস্য ?
চীনের শেয়ার বাজারেও কিন্তু তেমন বড় কোনো ক্ষতি হয়নি ৷উত্তর খুঁজতে গিয়ে জানাগেল …বেজিং ও সাংহাই চীনের প্রাণভ্রমরা আর সেখানে কারা থাকেন জানেন ?সেখানে থাকেন চীনের বড় বড় রাজনৈতিকলিডাররা,শিল্পপতীরা,বড় বড় মিলেটারী ফোর্স রা ৷কই তাদের একজনকেও তো এই ভাইরাস আক্রমন করল না ? তাদের সাথে কি ভাইরাসের ঘনিষ্ট বন্ধুত্ব ? এ প্রশ্ন তো জাগবেই ৷আসল রহস্য টা কি জানেন ?
চীন অনেকদিন থেকেই চেষ্টা করছিল সারাবিশ্বে নিজেদের কে শক্তিশালী দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করবার ৷কিন্তু তারা জানত আমেরিকা সহ বেশ কিছু শক্তিশালীদেশকে সহজে হারানো সম্ভব নয় ৷তাই তারাকৌশলে এই পথ বেছে নিল ৷তাদের একটি বাহিনী যারা সংক্রমন নিয়ে সারাবিশ্বে টহল দিয়েছে তাদের উদ্দেশ্যই ছিল নিজেদের দেশ এর স্বার্থ ৷ইটালিকে ধ্বংসকরবার জন্য একজন চীনা মহিলা এসেছিলেন এবং জানাযায় ঐ মহিলাই প্রথম ইটালিতে মৃত্যুখেলা শুরু করে দিয়ে গেছে ৷আর এভাবেই তাদের এজেন্টরা সারা বিশ্ব এ এই অসুখ ছড়িয়ে সমগ্র বিশ্বকে একেবারে মেরুদন্ডহীনে পরিনত করেছে ৷আর এটাই হলো চীনের বিশ্বজয়করবার ফর্মুলা ৷নাটকটা কি সুন্দরকরেই না সাজানো !তবে এও সত্য যে যতদিননা পর্যন্ত এই ভাইরাস তাড়ানোর অস্ত্র আমাদের হাতে আসছে ততদিন পর্যন্ত নাটক শুধু দেখেই যেতে হবে ৷চীনের বিরুদ্ধে ঠিক কি করা উঁচিত এবার বোধহয় ভাববার দিন এসেছে ৷পৃথিবীর সমগ্রদেশ মিলে কি চীনকে অবরুদ্ধ করে দেওয়াউঁচিত নয় ?এর পরও কি আমরা চায়না প্রোডাক্ট ব্যবহার করব ?
আমাদের শ্রেষ্ঠসন্তানের কথা আজকের এই দিনেও বড় প্রাসঙ্গিক —-

“যাহারা তোমার বিষাইছে বায়ু ,নিভাইছে তব আলো ৷
তুমি কি তাদের ক্ষমাকরিয়াছো !তুমি কি বেসেছো ভালো ?”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here