দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ফিরছেন পারিযায়ী শ্রমিকরা।

0
69

নিজস্ব সংবাদদাতা, পূর্ব মেদিনীপুর:-চিকিৎসা এবং ভিনরাজ্যে কাজ করতে গিয়ে লকডাউনের ফলে আটকে পড়েছিলেন রাজ্যের বহু পরিযায়ী শ্রমিক। পূর্ব মেদিনীপুরের এ রকম 374 জন বাসিন্দা গতকাল ট্রেনে ও বাসে ফিরে আসেন ভিন রাজ্যে আটকে থাকা পরিযায়ী শ্রমিকেরা,জানাগেছে ভেলোর থেকে স্পেশাল ট্রেনে খড়্গপুরের হিজলি স্টেশনে পৌঁছান 310 জন রোগী এবং তাঁদের পরিবারের সদস্যরা। তাঁদের প্রত্যেককেই জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের তরফে থার্মাল স্ক্রিনিং ও শারীরিক পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর 14 দিন হোম কোয়ারানটিনে থাকার পরামর্শ দেওয়া হয় জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর থেকে,লকডাউনের আগে চিকিৎসার জন্য তামিলনাডুর ভেলোরে গিয়ে ছিলেন এ রাজ্যের বহু রোগী ও তাঁদের পরিবারের সদস্যরা। এরপর কোরোনার সংক্রমণ রোধে দেশ জুড়ে জারি হয় লকডাউন। পশ্চিমবঙ্গ থেকে যাওয়া মানুষজন আটকে পড়েন ভেলোরে। দীর্ঘ লকডাউনে কাছে থাকা টাকা পয়সাও প্রায় সব শেষ হয়ে যায় পরে ভিন রাজ্যে আটকে পড়া মানুষের কথা চিন্তাভাবনা করে ট্রেন চালানোর সিদ্ধান্ত নেয় কেন্দ্রীয় সরকার। সেই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ভারতীয় রেলের তরফে বিশেষ ট্রেনের ব্যবস্থা করা হয়। সেই বিশেষ ট্রেনে রাজ্যের 1464 জন রোগী, তাঁদের পরিবারের সদস্য এবং শ্রমিকরা ফেরেন পশ্চিম মেদিনীপুরের খড়্গপুরে। সেখান থেকে পরিবহন দপ্তরের নয়টি বাসে করে সন্ধে নাগাদ পূর্ব মেদিনীপুর জেলার 310 জন যাত্রীকে নিয়ে আসা হয় জেলার মেচেদা স্টেশন লাগোয়া পথসাথীতে আনা হয়েছে। সেখানেই তাঁদের থার্মাল স্ক্রিনিং ও শারীরিক পরীক্ষা করার পর বাড়ি পাঠানো হয়।অন্য দিকে চেন্নাইয়ে আটকে পড়া পূর্ব মেদিনীপুরের 64 জন শ্রমিককে নিয়ে গতকাল জেলায় এসে পৌঁছায় পরিবহন দপ্তরের দুইটি বাস। দুপুর নাগাদ সেই বাসের সকল যাত্রীসহ 6 চালক ও কন্ডাক্টরের শারীরিক পরীক্ষা করা হয় চণ্ডীপুরের কোরোনা হাসপাতালে। জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরের তরফে সেখানে প্রত্যেকের সোয়াব সংগ্রহ করা হয়। জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক নিতাইচন্দ্র মণ্ডল জানিয়েছেন, ভেলোর থেকে আসা প্রত্যেক যাত্রীর থার্মাল স্ক্রিনিং করা হয়েছে। তাঁদের নাম, ঠিকানা ও ফোন নম্বর সম্বলিত তালিকা তৈরি করে রাখা হয়েছে। ধাপে ধাপে তাঁদের পরবর্তীকালে সোয়াব সংগ্রহ করা হবে। এবং চেন্নাই থেকে ফেরা সমস্ত যাত্রীর শারীরিক পরীক্ষার পর সোয়াব সংগ্রহ করে পাঠানো হয়েছে টেস্টের জন্য। সকলকেই 14 দিনের হোম কোয়ারানটিনে থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। তবে ভিন রাজ্যে আটকে থাকা এসব মানুষজন বাড়ি ফিরে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here