সারদার সমস্ত রকমের ষড়যন্ত্রের সঙ্গে জড়িত মুকুল রায় চন্দ্রকোনা টাউনের সমাবেশে বললেন তৃণমূল নেতা কুণাল ঘোষ।

0
247

নিজস্ব সংবাদদাতা পশ্চিম মেদিনীপুরঃ-মঙ্গলবার পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার চন্দ্রকোনা টাউন থানার খেজুরডাঙা মাঠে কেন্দ্র সরকারের কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে এক সমাবেশের আয়োজন করা হয়।ওই সমাবেশে বক্তব্য রাখেন তৃনমূলের পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা সভাপতি অজিত মাইতি,চেয়ারম্যান বিধায়ক দিনেন রায়,তৃনমূলের রাজ্য কমিটির মুখপাত্র রাজ্যসভার প্রাক্তন সাংসদ কুনাল ঘোষ,হাওড়ার সাংসদ প্রসূন ব্যানার্জী, তৃণমূল নেত্রী সুজাতা খাঁ মণ্ডল,বিধায়ক শিউলি সাহা,ছায়া দোলাই,শ্রীকান্ত মাহাতো, জেলা পরিষদের সভাধিপতি উত্তরা সিংহ হাজরা ,তৃনমূলের নেতা নির্মল ঘোষ ও গোপাল সাহা সহ আরো অনেকে। প্রকাশ্য সমাবেশে তৃনমূলের মুখপাত্র রাজ্য সভার সাংসদ কুনাল ঘোষ তার ভাষণে বলেন শোভন কে কোর্টের নোটিশ পাঠিয়েছি।আদালতের সামনে ওকে নীল ডাউন করে বসিয়ে রাখবো।তিনি তার ভাষণে বলেন সারদার সমস্ত রকমের ষড়যন্ত্রের সঙ্গে জড়িত বিজেপি নেতা মুকুল রায়। লুটপাট থেকে সারদা কর্তা সুদীপ্ত সেনকে পালাতেও সাহায্য করেছেন মুকুল রায়। তিনি সারদার ষড়যন্ত্রে ছিলেন বলে সুদীপ্ত সেন বিচারকের কাছে সারদার তদন্তের জন্য চিঠি দিয়েছেন। তাতে নাম রয়েছে মুকুল রায় এর। আমি তার বিরুদ্ধে মানহানির নোটিশ পাঠাবো ।তিনি বলেন বিজেপি ঘুরে দাঁড়াবে বলে মুকুল রায় বলছেন। যিনি কাঁপতে কাঁপতে বলেন আমাকে ধরো না আমাকে ধরো না সে কি ভোটে ঘুরে দাঁড়াবেন ।উনি হলেন চাণক্য। মেড ইন চায়না। সেই সঙ্গে তিনি বলেন সারদার প্রকৃত তথ্য উঠে আসবে সিবিআই তদন্ত করলে।সারদা কর্তা সুদীপ্ত সেন বিচারকের কাছে লিখিতভাবে জানিয়েছেন। তিনি আরো বলেন যে কেবলমাত্র নিজেকে বাঁচানোর জন্য তিনি তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে জেলে যাওয়ার ভয় বিজেপি দলে যোগদান করেছেন ।আগামী দিনে বাংলার মানুষ মুকুল রায়ের মতো চাণক্যকে উপযুক্ত জবাব দেবে ।বাংলার মানুষ সারদাকাণ্ডের তদন্তের জন্য তাকিয়ে রয়েছেন। সারদাকাণ্ডের একমাত্র ষড়যন্ত্রকারী হলেন মুকুল রায়। মুকুল রায় সারদা কর্তা সুদীপ্ত সেনকে যেমন পালাতে সাহায্য করেছেন তেমনি সারদার সমস্ত লুটপাট করেছেন। তাঁর বিরুদ্ধে তদন্ত হওয়া উচিত। আমরা তাকিয়ে রয়েছি আদালতের দিকে। তিনি শুভেন্দু অধিকারীর নাম না করে বলেন প্যারাসুটে নামিনি ,উঠিনি ,সিঁড়ি ভাঙতে ভাঙতে উপরে উঠেছি। তিনি সমাবেশে মায়েদের বলেন যদি আপনার অবুঝ ছেলে সিঁড়ি ভাঙতে ভাঙতে ভাঙতে নেড়া ছাদে উঠে যায় তার কপালে কি থাকে তখন সে ছাড়া অন্য কেউ জানে না। মুখে সন্ন্যাসী আর কাজের বেলায় অন্য ।বাংলার মানুষ ওকে উপযুক্ত জবাব দেবেন। তিনি বলেন উনাকে দল দায়িত্ব দিয়েছিল তাই অনেক জেলায় দলের হয়ে কাজ করেছেন ।কিন্তু উনি দলের সাথে বেইমানি করেছেন।চন্দ্র কোনার বিশাল সমাবেশ তিনি বলেন দেখা হবে বন্ধু দেখা তো হবেই ভোট গণনার পর বিজয় মিছিল করার সময় দেখা হবে। ওই সমাবেশে বিজেপিকে তীব্র ভাষায় আক্রমণ করেন বিজেপির যুব মোর্চার রাজ্য সভাপতি বিষ্ণুপুরের সাংসদ সৌমিত্র খাঁ এর সহধর্মীনি সুজাতা খাঁ মন্ডল। তিনি বলেন বিজেপিতে কোনো সম্মান নেই ।মহিলাদের তারা কোন সম্মান দিতে জানে না। তাই রাজ্যের উন্নয়নের কান্ডারী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়নের হাতকে আরও শক্তিশালী করে তোলার জন্য আমি বিজেপি দল ছেড়ে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করেছি। বিজেপিতে আমার দম বন্ধ হয়ে আসছিল,তাই তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করে আমি মুক্ত নিঃশ্বাস নিতে পারছি ।আমার দৃঢ়বিশ্বাস ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনে বাংলার মানুষ বিজেপিকে বর্জন করবে। উন্নয়নের কান্ডারী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে তৃতীয়বারের জন্য মুখ্যমন্ত্রী করবেন ।তাই চন্দ্রকোনা টাউনের সমাবেশে হাজার হাজার মানুষ সামিল হয়েছেন। হাওড়ার সাংসদ প্রসূন ব্যানার্জী বলেন আপনারা দিদির সাথে থাকুন দিদির হোয়ে কাজ করুন। বাংলা কে রক্ষা করুন। সাম্প্রদায়িক শক্তি বিজেপি বাংলার ঐতিহ্য নষ্ট করতে শুরু করেছে। তাই আপনারা দিদির পাশে থাকুন ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপিকে গঙ্গায় বিসর্জন দিন ।তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি অজিত মাইতি বলেন পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার ১৫ টি বিধানসভা আসনে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থীরা বিপুল ভোটে নির্বাচিত হবেন। পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার মানুষ কোনো বেইমানকে জায়গা করে দেবে না ।স্বাধীনতা আন্দোলনের পবিত্র ভূমি মেদিনীপুর ।যে মেদিনীপুরের মাটি বিদ্যাসাগর, ক্ষুদিরাম, মাতঙ্গিনী হাজরার মাটি। যে মাটি বিপ্লবীদের মাটি, স্বাধীনতা আন্দোলনের মাটি। তাই এই মাটি কে প্রণাম করে আমরা শপথ গ্রহণ করছি বিজেপিকে বাংলা ছাড়া করবো। বিধানসভা নির্বাচনের পর বিজেপিকে কোথাও খুঁজে পাওয়া যাবে না ।দূরবীন দিয়েও খুঁজে দেখতে হবে কোথায় বিজেপি রয়েছে। তাই তিনি শুভেন্দু অধিকারীর নাম না করে তাকে তীব্র ভাষায় আক্রমণ করেন। তিনি বলেন পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার ১৫ টি আসনে ২০১৬সালের নির্বাচনের থেকে বেশি ভোটের ব্যবধানে দলের প্রার্থীরা জয়লাভ করবে। তিনি দলীয় কর্মীদের ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানান। বিজেপির পাতা ফাঁদে পা না দেওয়ার আবেদন জানান। সেই সঙ্গে তিনি বলেন কৃষক বিরোধী কেন্দ্রের বিজেপি সরকার কৃষক বিরোধী বিল পাস করেছে। সেই কৃষক বিরোধী কৃষি বিল প্রত্যাহারের দাবিতে সর্বস্তরের মানুষকে কে সঙ্গে নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের আন্দোলন অব্যাহত থাকবে। সেই সঙ্গে দিল্লিতে যে সকল কৃষক কৃষি বিল বাতিলের দাবিতে আন্দোলনে শামিল হয়েছেন তাদের পাশে তৃণমূল রয়েছে বলে তিনি বার্তা দেন। তিনি বলেন বিজেপি দেশটাকে বিক্রি করে দেওয়ার ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। বিজেপি র মতো সাম্প্রদায়িক শক্তিকে দেশ থেকে হটানোর জন্য তিনি সকলের কাছে আহ্বান জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here