গ্রীসের পথে পথে (পর্ব-২) : রাজাদিত্য ব্যানার্জী।

0
1635

সেই যে কবে বাড়ি ছেড়ে চলে এসেছি
বছর গুলো কিভাবে যেন হারিয়ে যাচ্ছে নিভে যাওয়া সন্ধেবেলাগুলোর মতন
সময় ফুরিয়ে আসছে মান্থলি টিকিটের মতন
নিজের বাড়িটা ঠিক কোথাও নিজেও কি জানি ?
বাউন্ডুলেদের আবার বাড়ি ঘর থাকতে আছে নাকি ? শিকড় থেকেও যেন শিকড়হীন এক অস্তিত্ব

এক বিমানবন্দর থেকে আরেক, এক শহর থেকে আরেক অজানা শহর , দেশ মহাদেশ, সাগর মহাসাগর , বিশ্বায়ন সব বাবার (দেবাশিস বন্দ্যোপাধ্যায় ) নাটকের ভাষায় ১০০ মিটার রেসে দুরন্ত গতিতে ছুটে চলেছে । আমি দাঁড়িয়ে দেখছি, শিখছি, দেখছিনা আবার শিখছিও না ।

টুরিস্ট হতে চাইনি , ট্রাভেলার হতে চেয়েছি। ছোটবেলায় ডেভিড লিভিংস্টোন বা রবিনসন ক্রুসো পড়ার ফল ।
অবসাদ পাশে ছিল প্রভুভক্ত ডায়েরির মতন ।

একসময় সব ছেড়ে দিয়ে গুরুর খোঁজে বেরিয়ে পড়েছিলাম । বেশ কিছুটা সময় কেটেছিল ইতালির নানান প্রান্তে । তারপর হঠাৎ একদিন আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে যে গুরুকে খুঁজছিলাম তাঁকে পেয়ে গেলাম ।
শুরু হল আরেকটা জার্নি ।

জীবনে অনেককিছু দৃষ্টিভঙ্গির ওপর নির্ভর করে ।
চুড়ান্ত দুঃসময়টা আমার শ্রেষ্ঠ প্রাপ্তি ।
নিজেকে না হারালে নিজেকে চিনবো কি করে ?
দিন রাতের মতন কত মানুষ এলেন গেলেন পরাজিত করলেন আমাকে । সমৃদ্ধও করেছেন ।
পরিচয় হয়েছে কত মানুষের সঙ্গে , অনেকের কাজ অনুপ্রেরণা যুগিয়েছে অন্ধকারের সকাল সন্ধ্যেয়

অনেকে শিখিয়েছেন কি চতুর এই বেঁচে থাকা । কতটা কঠিন কবিতা , থিয়েটার ও সিনেমা নিয়ে বেঁচে থাকা ।
আরও কঠিন এই সব কিছু নিয়ে জীবিকা নির্বাহ করা । তবুও দিনের শেষে একটা কবিতা লিখলে , ফিল্ম ও থিয়েটার করলে সব ক্লান্তি নিমেষে দূর হয়ে যায় ।

চারিদিকে বিষ । ক্ষতিক্ষরক রেডিয়েশন ক্রমাগত আক্রমণ করেই যাচ্ছে আমাদের । আমরা বিপন্ন । ভয়ঙ্কর বিপন্ন ।
আসে পাশে একটা খেলা শুরু হয়ে গেছে সে কবে থেকে । এই খেলা শুধু ক্রিকেট বা ফুটবল মাঠে হয়না । খেলাটা শুরু হয় মানুষের মাথায় ।

কিন্তু সবাই কি খেলতে পারে ? সবাইকে কি খেলতেই হবে ?
যে গাছে ফুল ফোটেনা বা যে গাছ ফল দেয়না আমাদের তাঁদের কি বেঁচে থাকার অধিকার নেই ?

প্রান্তিক মানুষে ভরে গেছে এই গ্রহটা । খেলতে না চাইলেও এই খেলাটায় তাঁদের অংশগ্রহন না করা ছাড়া কোনো উপায় নেই । কেউ শুয়ে আছেন এথেন্সের সিন্তাগ্মার বেঞ্চে, পার্কে , রাস্তায় । কেউ ছত্তিসগড়ের জঙ্গলে , কেউ বা আফ্রিকার উষ্ণতম দিনে রেফিউজি ক্যাম্পকে বিদায় জানিয়ে সাহারা মরুভূমি পেরিয়ে নতুন জীবনের সন্ধানের বেরিয়ে পরেছেন |

এই দেখা, না দেখা, শেখা না শেখা আর এই সব মানুষদের অস্তিত্ব বা মৃত্যু নিয়ে আমাদের মাথা ব্যাথা নেই ।
এদের আমরা কম্পিউটারের ভাইরাসের মতন ডিলিট করে বেঁচে আছি ।

আসলে ভাইরাস তা এই সিস্টেমটা ।
আসল অণুজীব আমাদের লোভ , ক্ষমতার , অর্থের , প্রভাবের । করোনা চলে যাবে কিন্তু how will the other half survive ?

মানবিকতা ফেইসবুক ও টুইটের মধ্যে খাঁচা বন্দি ।
আসল মন্ত্র হল নিজেকে বাঁচিয়ে রাখো আর মজা দেখো স্টেডিয়ামে গিয়ে । কি ভাবে বাকিরা মরছে , পচছে ।
মানবিকতা এক ডাইনোসর যে সাড়ে ছ কোটি বছর আগে এই গ্রহ ছেড়ে বিদায় নিয়েছিল ।

এথেন্স এর ব্যস্ত এলাকা সিন্ট্যাগমা । সেখানের পার্কে কবরের মতন স্লিপিং ব্যাগে শয়ে শয়ে শুয়ে আছে এলিয়েনরা । থুড়ি শরণার্থীরা ।
সে ছবি পোস্ট করবোনা ।

ওদের স্লিপিং ব্যাগের মতোই খাঁচায় বন্দি করে রেখেছি আমার মানবিকতা । বা এভাবে বলা যেতে পারে আসলে আমি কেউ না । একজন প্রিভিলেজড কেউ না ।

শো আছে , হলের দিকে এগোচ্ছি | যেতে যেতে ভাস্করদার দুটো লাইন মনে পড়লো

” মানুষ যেমন জ্যান্ত পুড়ে যায় সেরকম মৃত কোনো চিতায়ও পোড়ে না ”
__________________________________
©️ রাজাদিত্য ব্যানার্জী
ছবি । এথেন্সে রাজাদিত্য ব্যানার্জী |
খিচিক : কাইকু নেনা গ্রেসা
নিউ ইয়র্ক | সন্ধ্যে ১৯.০৩
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
০২ জুলাই ২০১৫

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here