করোনা সচেতনায় মাস্ক পরে অনুষ্ঠিত হল বিয়ে।

0
274

নিজস্ব সংবাদদাতা, ক্যানিংঃ-চলছে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ।প্রতিনিয়ত আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়েই চলেছে।সাধারণ মানুষ করোনা কে প্রতিহত করতে লড়াই চালিয়ে চলেছেন জোর কদমে।মাস্ক পরা বাধ্যতামুলক।সেই কঠিন মুহূর্তে দাঁড়িয়ে বেশকিছু মানুষজন শহরের বিভিন্ন রাস্তাঘাটে,বাসে ট্রেনে মাস্ক ছাড়াই চলাচল করছেন।অন্যদিকে করোনা ভাইরাস কে প্রতিহত করতে প্রত্যন্ত সুন্দরবনের প্রবেশদ্বার ক্যানিং শহরের ধলীরবাটীর আমড়াবেড়িয়া গ্রামে দেখা গেল অত্যন্ত সচেতনতা।সোমবার রাতে এলাকার একটি বিয়ে বাড়িতে অতিথী অভ্যাগতদের আনাগোনা চলছে।বিয়ে বাড়ির দরজার সামনে মাস্ক পরিহিত দুই যুবক ঠায় দাঁড়িয়ে রয়েছেন। তাদের হাতে রয়েছে স্যানিটাইজার।বিয়ে বাড়িতে যে সমস্ত অতিথী অভ্যাগতরা আসছেন তাদের হাতে স্যানিটাইজার দিচ্ছেন।অন্যদিকে বিয়ে বাড়ির বক্সে ধীরগতিতে বেজেই চলেছে কিশোর কুমারের গান ‘পৃথিবী বদলে গেছে’ কখনও বা পৃথিবী আমারে চায়—-’।সত্যিই তো পৃথিবী বদলে গেছে।একমাত্র করোনা মহামারী পৃথিবী কে বদলে দিয়ে অনেক কিছু শিখিয়েছে। বিয়ের আসরে তখনও চার হাত একত্রিত হয়নি।লগ্ন ১১ টা ৩৫ মিনিট গতে।বিয়ে বাড়ি বলে যে কথা। মাঝে মধ্যে সানাইয়ের সুর ও বেজে চলেছে।বাসন্তীর মাতলা নদীর তীরবর্তী হাড়ভাঙ্গি গ্রাম থেকে সবেমাত্র রব ও এসেছে।প্রত্যেক অতিথী অভ্যাগত সহ বরযাত্রী দের মুখে মাস্ক।ইতিমধ্যে পুরোহিত মশাই বিয়ের আসরে কনে এবং বর কে ডেকে পাঠিয়েছেন।মুখে মাস্ক পরিহিত অবস্থায় বিয়ের আসরে হাজীর কনে ডলি ওরফে যুথিকা সরদার ও বর দেবাশীষ শিকারী। বিয়ের মন্ত্র উচ্চারণের আগেই বর, কন ও পুরোহিত মশাইয়ের মুখে মাস্ক দেখে বিয়ের আসরে সকলেই অবাক হয়ে যায়।দ্রুততার সাথে বিয়ের কাজ শুরু করেন পুরোহিত মশাই।করোনা নিয়ে প্রত্যন্ত সুন্দরবনের গ্রামের মানুষের এমন সচেতনতায় খুশি সকলেই।বিয়ে বাড়ির কর্তা মিলন মন্ডল জানিয়েছেন ‘যেখানে মহামারী চলছে,সেখানে তো আর উপেক্ষা করা যায় না। তাই সকলে যাতে মাস্ক পরে অনুষ্ঠান বাড়িতে আসেন তার জন্য বিয়ের আগেই অনুরোধ জানিয়ে ছিলাম।সকলে সেই অনুরোধে সামিল হওয়ায় ভালোই লাগছে।”
অন্যদিকে এমন বিয়ে বাড়ি প্রসঙ্গে বিশিষ্ট সমাজসেবী তথা দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা ডঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জী গ্রামীণ স্বাস্থ্য সুরক্ষা মিশনের সভাপতি অজয় বায়েন জানিয়েছেন “ক্যানিংয়ের বিয়ে বাড়িতে যে ভাবে সকল অতিথী অভ্যাগতরা মাস্ক পরেছিলেন তা সত্যি খুবই ভালো উদ্যোগ।করোনা প্রতিহত করার একমাত্র উপায় সচেতনতা।আর সেই সচেতনতা ও সাবধানতা অবলম্বন করে বিয়ের আসরে নব দম্পতির চার হাত একত্রিত হওয়ায় খুশি।এছাড়া সকলের উদ্দেশ্যে একটা আবেদন করবো মাস্ক অবশ্য ব্যবহার করুন।কারণ ‘সচেতনতাই’ করোনা রোধের মূল ওষুধ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here