অলিম্পিকের বিভিন্ন ক্রীড়া সর্ম্কিত তথ্য।

0
655

৩৫টি ক্রীড়া, ৩০টি শাখা ও প্রায় ৪০০টি বিভাগের সমাহার হল অলিম্পিক ক্রীড়াসমূহ। যথা, কুস্তি একটি গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক ক্রীড়া, যার দুটি শাখা হল: গ্রেকো-রোমান এবংফ্রিস্টাইল। উপরন্তু ওজনের ভিত্তিতে ১৪টি পুরুষদের ও ৪টি মহিলাদের বিভাগও বর্তমান। বর্তমানে গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিকে ২৬ টি ক্রীড়া ও শীতকালীন অলিম্পিকে ১৫ টি ক্রীড়ার প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিকের প্রতিটি আসরে দৌড়বাজী, সাঁতার, অসিচালনা, এবং জিমন্যাস্টিক্স ক্রীড়ার প্রতিযোগিতা নিয়মিত থেকেছে। অন্যদিকে, ১৯২৪ সালে শীতকালীন অলিম্পিক শুরু হবার পর থেকে ক্রস-কান্ট্রি স্কিইং, ফিগার স্কেটিং, আইস হকি, যুগ্ম নর্ডিক, স্কি লাফ, এবং দ্রুত স্কেটিং ক্রীড়াগুলি প্রতিটি আসরের নিয়মিত সদস্য। আজকের অলিম্পিকের অন্যতম ক্রীড়ার অনেকগুলিই প্রথমে প্রদর্শনমূলক ক্রীড়া হিসাবে অলিম্পিকে আয়োজিত হয়েছে; যেমন, -ব্যাডমিন্টন, বাস্কেটবল, এবং ভলিবল।
প্রতিটি অলিম্পিক ক্রীড়ারই আইওসি স্বীকৃত আন্তর্জাতিক নিয়ামক সংস্থা আছে। আইওসিতে এমন মোট ৩৫ টি সংস্থার প্রতিনিধিত্ব আছে।স্বীকৃত সংস্থাগুলির মধ্যে এমন কিছু খেলার সংস্থাও আছে যে খেলা আপাতত অলিম্পিকের আসরে অনুষ্ঠিত হয় না। তবে এই বর্তমানে ক্রীড়াগুলি অলিম্পিক ক্রীড়ার মর্যাদা না পেলেও, যে কোনো অলিম্পিকের আসরের ঠিক পরবর্তী আইওসি সম্মেলনে অলিম্পিক ক্রীড়ার তালিকা সংশোধনের মাধ্যমে পরের অলিম্পিকে সংযোজিত হতে পারে। আইওসি সম্মেলনে অলিম্পিক ক্রীড়ার তালিকা সংশোধনের সময় শুধু যে কেবল নতুন ক্রীড়ার সংযোজন হয় তাই নয়; কোনো বর্তমান ক্রীড়া বাদও দেওয়া হয়, আর এটা করা হয় আইওসির মোট সদস্যের অন্ততঃ দুই-তৃতীয়াংশ ভোটের ভিত্তিতে। দাবা বা সার্ফিং-এর মত এমন অনেক আইওসি স্বীকৃত ক্রীড়া আছে যা কোনো দিন অলিম্পিকে অনুষ্ঠিত হয়নি।
২০০৪ সালের অক্টোবর-নভেম্বর মাসে আইওসি একটি অলিম্পিক অনুষ্ঠানসূচী কমিশন গঠন করে। এই কমিশনের উদ্দেশ্য ছিল অলিম্পিক অনুষ্ঠানসূচীর বর্তমান ক্রীড়া ও আইওসি অননুমোদিত সকল ক্রীড়ার পর্যালোচনা করে একটি সুনির্দিষ্ট পদ্ধতির রূপরেখা তৈরী করা যাতে প্রতিটি অলিম্পিকের অনুষ্ঠানসূচী স্থির করা সহজ হয়। কমিশন সাতটি শর্ত ঠিক করে যার ভিত্তিতে স্থির করা হবে কোনো ক্রীড়া অলিম্পিকের আসরে আয়োজিত হবে কিনা। এই শর্তগুলি হল, – ক্রীড়াটির ইতিহাস ও ঐতিহ্য, বিশ্বজনীনতা, জনপ্রিয়তা, ভাবমূর্তি, ক্রীড়াবিদের স্বাস্থ্য, সংশ্লিষ্ট আন্তর্জাতিক নিয়ামক সংস্থার বিকাশ এবং ক্রীড়াটি আয়োজনের খরচ। এই মূল্যায়ণের ভিত্তিতে পাঁচটি স্বীকৃত ক্রীড়ার (যথা, গল্ফ, কারাতে, রাগবি ইউনিয়ন, রোলার ক্রীড়া এবং স্কোয়াশ) সুপারিশ করা হয় ২০১২ গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিকে অন্তর্ভুক্তির জন্য।আইওসি কার্যনির্বাহী পরিষদ এই ক্রীড়াগুলির পর্যালোচনা করার পর ২০০৫ সালের জুলাই মাসে সিঙ্গাপুরে আয়োজিত সাধারণ সভায় সুপারিশ করে। পাঁচটির মধ্যে মাত্র দুটি ক্রীড়া – কারাতে ও স্কোয়াশ চূড়ান্ত ভোটাভুটির জন্য নির্বাচিত হয়। কিন্তু কোনোটিই প্রয়োজনীয় দুই-তৃতীয়াংশ ভোট না পাওয়ায় অলিম্পিকের সূচীতে স্থান পায়নি। পরবর্তী পর্যায়ে, ২০০৯ সালে আইওসি ভোটে গল্ফ ও রাগবি ইউনিয়ন ক্রীড়াদুটিকে ২০১৬ ও ২০২০ গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক গেমসে অন্তর্ভুক্তির সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
২০০২ সালে অনুষ্ঠিত ১১৪তম আইওসি অধিবেশনে গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিকের আয়তন নির্দিষ্ট করতে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় যে, – সর্বোচ্চ ২৮টি ক্রীড়ার ৩০১টি বিভাগে ১০,৫০০ জন ক্রীড়াবিদ অংশ নিতে পারবে।তিন বছর পর, ১১৭তম আইওসি অধিবেশনে প্রথম গুরুত্বপূর্ণ অনুষ্ঠানসূচী পরিবর্তন সাধিত হয়। ফলে বেসবল ও সফ্টবল ২০১২ লন্ডন অলিম্পিকের ক্রীড়াসূচী থেকে বাদ পড়ে। যেহেতু পরিবর্ত ক্রীড়ার বিষয়ে কোনো ঐকমত্য্য হয়নি, ২০১২ অলিম্পিকে তাই ২৬ টি ক্রীড়ার প্রতিযোগিতা হয়।তবে রাগবি ও গল্ফের ভুক্তির ফলে ২০১৬ ও ২০২০ অলিম্পিকে সর্বোচ্চ সীমার ২৮টি ক্রীড়াই দেখা যাবে।
।।সংগৃহীত।।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here