দূরত্ব : পিয়াংকী ব্যানার্জী।

Spread the love

চুপিসারে প্লাবন এসেছে
ভিজিয়ে দিয়ে গেছে সমস্ত অহংকার
গোপন গলিপথে যেখানে নির্বাক উদ্ভিদ ছাড়া কেও কোনদিন মাথা তুলে দাঁড়ায়নি
আজ বন্দীঘরের ওটুকুও খোলামাঠ

খালি হয়ে আছে আমার সব অরক্ষিত পার্বন

যতটুকু প্রবণতা বীজ বোনার খাতিরে চষেছিলো আবাদিজমি
যেটুকু নির্ভরতা আষ্টেপৃষ্ঠে জমিয়ে রেখেছিল শষ্যাগার
কার্যত হিসেব চুকিয়ে ঋণের দলিল প্রকাশ্যে ছিঁড়ে তুমি হেঁটে গিয়েছিলে আলপথ মেপে

আমি ফসলের দেহ দানসামগ্রীর এজলাসে সমর্পণ করে
আয়তন আর ক্ষেত্রফল জরিপ করতে করতে সন্ধে নামিয়েছি মাটিতে …

তখনও তুমি হেঁটে যাচ্ছ অথচ আবছা হয়ে আসছে তোমার প্রতিকৃতি
একটা ঝাঁঝালো অন্ধকার গ্রাস করে নিচ্ছে এ জন্মে আমার সঞ্চিত ঘনত্বটুকু

আমি উগড়ে দিচ্ছি বিষ
ব্যস্তানুপাতে তুমি পথ হয়ে গিলে নিচ্ছে ফিরতি রাস্তা
কমে আসছে দুজনের দূরত্ব

ধীরে ধীরে গোটা পৃথিবী হয়ে উঠছে সুরক্ষিত সংরক্ষণকেন্দ্র।


Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *