শালবনীর নোনাশোল গ্রামে রাতের অন্ধকারে গাছ কাটার অভিযোগ উঠল দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে, গাছগুলি উদ্ধার করল গ্রামবাসীরা।

0
121

পশ্চিম মেদিনীপুর, নিজস্ব সংবাদদাতা:-  পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার গড়বেতায় গাছ কেটে পাচার কাণ্ডে মুখ্যমন্ত্রী হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন নির্দেশ,সেই নির্দেশকে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে ফের পশ্চিম মেদিনীপুরে শালবনি ব্লকের পিড়াকাটার নোনাশোল গ্রাম লাগোয়া জঙ্গলে রাতের অন্ধকারে দুষ্কৃতিদের কাটা ৫০টি ৪০ বছরের পুরানো শালগাছ উদ্ধার করলো গ্রামবাসীরা,জানা গিয়েছে শালবনি ব্লকের আট নম্বর গড়মাল গ্রাম পঞ্চায়েতের নোনাশোল গ্রাম লাগোয়া সাল জঙ্গল থেকে উদ্ধার আনুমানিক ৫০ টি ৪০ বছরের পুরনো কাটা শাল গাছ। গ্রাম লাগোয়া জঙ্গল থেকে আনুমানিক মূল্যপ্রায়যার ৫ লক্ষ টাকা ৫০ টি ৪০ বছরের পুরনো কাটা শাল গাছ উদ্ধার করল গ্রামবাসীরা, এই উদ্ধার হওয়া শাল গাছগুলির আনুমানিক মূল্যযার ৫ লক্ষ টাকা গ্রামবাসি নিজেদের চেষ্টায় রাতে অন্ধকারে উদ্ধার করে গাছগুলিকে গ্রাম লাভুয়া ফুটবল মাঠে আনে পরে বনদপ্তর পুলিশকে খবর দেয় গ্রামবাসীরা গাছগুলি উদ্ধার করতে পারলেও অধরা দুষ্কৃতীরা, প্রসঙ্গত গত দুমাস আগে গরবেতায় একটি জঙ্গল থেকে কয়েক হাজার গাছ কেটে নেওয়া হয়েছিল। প্রশাসনিক অনুমতি ছাড়াই সেই নিয়ে তোলপাড় রাজ্য রাজনীত এই ব্যাপার মিটতে না মিটতে পুনরায আবারো গাছ কাটার ঘটনা ঘটলো শালবনি ব্লকের নোনাশোল গ্রামে রাতের অন্ধকারে চুপিসারে কেটে ফেলেছে । গ্রামের একদল যুবকের তৎপরতায় উদ্ধার হয় কেটে নেওয়া এই মূল্যবান শাল গাছগুলি।।কেউ বা কারা এই মূল্যবান পুরনো শাল গাছগুলি কেটেছে যা গ্রামবাসীদের মতে। মূল্য ৫ লক্ষ টাকা এছাড়াও এই গাছগুলি কেটে নেওয়ার ফলে গ্রামীন অর্থনীতিতেও ভাটা পড়বে বলে মনে করছেন তারা,কারণ এই গাছগুলি ৪০ বছর ধরে রক্ষণাবেক্ষণ করে রেখে তাদের এই পরিণাম গাছগুলি রক্ষণাবেক্ষণের জন্য গ্রামে থাকা আড়াইশোটি পরিবার কম-বেশি প্রত্যেক বছরে দশ থেকে বারো হাজার টাকা পেয়ে থাকে। বলে তারা জানিয়েছেন। এই দুষ্কৃতীদের দ্বারা কাটা গাছ থেকে তাদের অর্থনৈতিক ক্ষতি ছাড়াও প্রাকৃতিক পরিবেশ ও নষ্ট করবে বলে জানিয়েছেন গ্রামবাসীদের তরফ থেকে, প্রশাসনের কাছে একটাই আবেদন যাতে এই ধরনের দুষ্কৃতিদের সাজা হয় তা না হলে আগামী দিনে জঙ্গল সংরক্ষণে গ্রামবাসীরা তাদের মনোবল হারাবে। এটাই তারা প্রশাসনের কাছে অনুরোধ করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here