Category: স্বাধীনতার ইতিহাস

সাইমন কমিশনের বিরুদ্ধে ভারতীয়েদর আন্দোলন।

Spread the love

Spread the loveসূচনাঃ- স্বরাজ দলের পতনের ফল ১৯২৭ খ্রিস্টাব্দ থেকে ভারতে জাতীয় আন্দোলন যখন নিস্তরঙ্গ হয়ে ওঠে তখন সাইমন কমিশনের নিয়োগ সেখানে আবার কর্মচাঞ্চল্য এনে দেয়। ভারতের রাজনৈতিক আন্দোলন আবার উত্তাল হয়ে ওঠে। পরিস্থিতিঃ- যখন ১৯১০ খ্রিস্টাব্দে “India Council Act” পাশ হয় তার ১০ বছর পরের একটি রাজকীয় কমিশন নিয়োগ […]


Spread the love

১৯১৮-৩৪ পর্যন্ত ভারতের শ্রমিক আন্দোলন।

Spread the love

Spread the loveসূচনাঃ- ঔপনিবেশিক শাসনের ফলে ভারতের সাধারণ লোকের অর্থনৈতিক অবস্থা একেবারে নিচে নেমে গিয়েছিল। ভারতে বিংশ শতকের গোড়ার দিকে শিল্পের প্রসার ঘটে শিল্প শ্রমিকের সংখ্যা বাড়তে থাকে। এই শতকের গোড়ায় বঙ্গভঙ্গের বিরুদ্ধে শ্রমিকরা আন্দোলনে শামিল হন এবং রেল, কলকারখানায় ধর্মঘট করেন। ঔপনিবেশিক শাসন ও শোষণের বিরুদ্ধে শ্রমিকদের এই জাগরণ […]


Spread the love

হোমরুল আন্দোলনের উৎপত্তি, বিকাশ ও ফলাফল।

Spread the love

Spread the loveসূচনাঃ- ১৮৮৫ খ্রিস্টাব্দে ভারতের জাতীয় কংগ্রেসের প্রতিষ্ঠা হয়। কিন্তু ইহার সদস্যদের মধ্যে অধিকাংশ সক্রিয়ভাবে ব্রিটিশ সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলনের পক্ষপাতী ছিলেন না। অন্যদিকে বালগঙ্গাধর তিলক, অরবিন্দ ঘোষ, লালা লাজপত রায়, বিপিনচন্দ্র পাল প্রমুখ ব্যক্তিগণ ছিলেন সক্রিয় আন্দোলনের পক্ষপাতী। এইভাবে কংগ্রেস নরমপন্থী ও চরমপন্থী এই দুই দলে বিভক্ত হয়ে যায়। ১৯০৭ […]


Spread the love

১৯৪৬ সালের নৌ-বিদ্রোহ সম্পর্কে বর্ননা দাও।

Spread the love

Spread the loveসূচনাঃ- আজাদ হিন্দ বাহিনীর কার্যকলাপ, বীরত্ব সেনাপতিদের লালকেল্লার বিচার ও ব্রিটিশদের নীতি শিকার প্রমাণ করেছিল যে দমননীতি প্রয়োগের দ্বারা ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের গতি রুদ্ধ করা যাবে না। ভারতীয় পুলিশ ও সামরিক বাহিনীর উপর নির্ভর করার সময় শেষ হয়েছে। আজাদিন বাহিনীর পরাজয় ভারতের বাইরে মুক্তি সংগ্রাম স্তব্ধ হলেও তাদের […]


Spread the love

লবন সত্যাগ্রহ।

Spread the love

Spread the loveভারতের স্বাধীনতার ইতিহাসে মহাত্মা গান্ধীর উদয় ছিল এক যুগান্তকারী ঘটনা। মহাত্মার আর্বিভাবের সঙ্গে সঙ্গে ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলন কার্যত তাঁরই পরিকল্পিত আন্দোলনে পরিনত হয়। তাঁর বাস্তববুদ্ধি এবং আইনের ক্ষুরধারা জ্ঞান ছিল প্রখর। এমনকি কুটবুদ্ধিতে ব্রিটিশ শাসকরাও অনেক সময় তাঁর রাজনৈতিক বুদ্ধি ও দুরদর্শিতার সঙ্গে পাল্লা দিতে পারে নি। ভারতে […]


Spread the love

ভারতের বিপ্লবী আন্দোলনে পাঞ্জাবের ভূমিকা।

Spread the love

Spread the loveসূচনাঃ- ভারতের সশস্ত্র বিপ্লবী আন্দোলনে বাংলা ও মহারাষ্ট্রের মত পাঞ্জাবের ভূমিকা অপরিসীম।পাঞ্জাবে আন্দোলন শুরু হয় ১৯০৪ খ্রিস্টাব্দে। জে. এম. চ্যাটার্জীর নেতৃত্বে কয়েকজন যুবক দেশের জন্য জীবন উৎসর্গ করার প্রতিজ্ঞা করে একটি বিপ্লবী গুপ্ত সমিতি গঠন করেন। সশস্ত্র বিপ্লবের মাধ্যমে ভারতে ব্রিটিশ শাসনাধীন থেকে মুক্ত করাই ছিল এই সমিতির […]


Spread the love

ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের শেষ পর্যায় (১৯৪৫ – ৪৭)।

Spread the love

Spread the loveসূচনাঃ- দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রাম প্রবল আকার ধারণ করে। ভারতের অভ্যন্তরে গান্ধীজীর নেতৃত্বে ভারত ছাড়ো আন্দোলন এবং ভারতের বাইরে নেতাজী নেতৃত্বে আজাদ হিন্দ বাহিনীর সশস্ত্র সংগ্রাম জাতীয় আন্দোলনের শক্তি বৃদ্ধি করে। এর সঙ্গে সঙ্গে ভারতের অভ্যন্তরে সাম্প্রদায়িক জটিলতাও চরম আকার ধারণ করে। মহম্মদ আলী জিন্না, ‘পাকিস্তান’ […]


Spread the love

১৯২৯ হইতে ১৯৩১ সাল পর্যন্ত আইন অমান্য আন্দোলনে মহাত্মা গান্ধীর ভূমিকা।

Spread the love

Spread the loveসূচনাঃ- ১৯২২ খ্রিস্টাব্দে অসহযোগ আন্দোলন প্রত্যাশিত হয়। অসহযোগ আন্দোলনের ব্যর্থতা সাময়িকভাবে জাতীয় জীবনে হতাশা নেমে আসে। ১০২৭ খ্রিস্টাব্দে ভারতের জাতীয় জীবনে এক নতুন শক্তির উদ্ভব হয়। ১৯২০ খ্রিস্টাব্দের লাহোর কংগ্রেসে স্থির হয় যে ১৯৩০ খ্রিস্টাব্দের ২৬ শে জানুয়ারি দিনটাকে ভারতবাসী স্বাধীনতা দিবস হিসাবে পালন করবে। যতদিন না স্বাধীনতা লাভ […]


Spread the love

বাংলায় বিপ্লবী আন্দোলন।

Spread the love

Spread the loveসূচনাঃ- সংগ্রামী জাতীয়তাবাদের অন্যতম তীর্থভূমি ছিল বাংলাদেশ। ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষ দশকে সংগ্রামী জাতীয়তাবাদের উদ্ভব ঘটে যা সর্ব ভারতে বিস্তার লাভ করে। এই সন্ত্রাসবাদী আন্দোলন ভারতের স্বাধীনতার ইতিহাসে এক নব অধ্যায়ের সূচনা করে। এই সকল সন্ত্রাসবাদীগন স্বদেশিকতা ও গভীর দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে ,অস্ত্রশস্ত্র সংগ্রহ করে গুপ্তহত্যা ও সন্ত্রাস সৃষ্টির […]


Spread the love

বঙ্গভঙ্গ বিরোধী আন্দোলনের সংক্ষিপ্ত বিবরন।

Spread the love

Spread the loveসূচনাঃ- বাঙালি জাতির জাতীয় সংহতি ও জাতীয়তাবাদ কে আঘাত করার জন্য দরকার জন্য লর্ড কার্জন ১৯০৫ খ্রিস্টাব্দে বঙ্গভঙ্গের পরিকল্পনা প্রকাশ করেন। এটি প্রকাশিত হলে সুরেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায় তার “বেঙ্গলী” পত্রিকায় বঙ্গভঙ্গের কুফল সম্পর্কে একে “একটি গভীর জাতীয় বিপদ” বলে ব্যাখ্যা করে জাতিকে সজাগ করেন। তিনি লেখেন যে “আমরা অপমানিত লাঞ্ছিত […]


Spread the love