বিধানসভার পর এবার লক্ষ্য আগামী ২০২৩ সালের পঞ্চায়েত নির্বাচন।

0
297

নিজস্ব সংবাদদাতা, মালদা ১৯ডিসেম্বর: বিধানসভার পর এবার লক্ষ্য আগামী ২০২৩ সালের পঞ্চায়েত নির্বাচন। আর সেই নির্বাচনকে সামনে রেখে দলীয় কার্যালয়ের উদ্বোধন হলো মালদহের হরিশ্চন্দ্রপুরের তুলসীহাট্টা গ্রাম পঞ্চায়েতের বড়ল গ্রামে। শনিবার বিকেলে বড়ল গ্রামে দলীয় কার্যালয়ের উদ্বোধন করেন চাঁচোল বিধানসভার বিধায়ক নীহার রঞ্জন ঘোষ। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন হরিশ্চন্দ্রপুর ১ নম্বর ব্লকের যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক তৌহমিন আলম, হরিশ্চন্দ্রপুর ১ ব্লক পঞ্চায়েত সমিতির সদস্যা সুজাতা সাহা, হরিশ্চন্দ্রপুর ১ ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি মানিক দাস, জেলা তৃণমূল সাধারন সম্পাদক বুলবুল খান সহ অন্যান্যরা। এই দিন দলীয় কার্যালয় উদ্বোধন কে ঘিরে বড়ল মাঠে প্রকাশ্য জনসভার আয়োজন করা হয়। সভামঞ্চে উপস্থিত ছিলেন জেলা ও ব্লক নেতৃত্ব। এদিন ফিতে কেটে ও নারকেল ফাটিয়ে কার্যালয়ের দ্বার উদ্ঘাটন করেন চাঁচোলের বিধায়ক নীহার রঞ্জন ঘোষ।

উল্লেখ্য, ২০২৩ সালে পঞ্চায়েত নির্বাচন নির্বাচনকে সামনে রেখে এখন থেকে প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। মালদা জেলার বেশির ভাগ গ্রাম পঞ্চায়েত এখন তৃণমূলের দখলে। নির্বাচনের আগে নিজেদের জয় ধরে রাখতে এখন থেকে তাঁর জোর প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছেন ব্লক ও সংগঠনের নেতৃত্ব। দলীয় কার্যালয় উদ্বোধন শেষে শীত উপলক্ষে একটি কম্বল বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এলাকার প্রায় পাঁচ শতাধিক গরীব দুঃস্থদের হাতে কম্বল তুলে দেন বিধায়ক নীহার রঞ্জন ঘোষ, পঞ্চায়েত সমিতির সদস্যা সুজাতা সাহা সহ অন্যান্য সাংগঠনিক নেতৃত্বরা।

এ প্রসঙ্গে এলাকার বিধায়ক নিহার রঞ্জন ঘোষ জানান তুলসিহাটা বড়ই কুশিদা রশিদাবাদ এই চারটি অঞ্চল চাঁচল বিধানসভার অন্তর্গত। আর সামনে পঞ্চায়েত নির্বাচন। হাতে এক বছর সময় রয়েছে। পঞ্চায়েত নির্বাচনের পরে লোকসভা নির্বাচন। এই দুই নির্বাচনকে সামনে রেখে এলাকার মানুষদের বিভিন্ন পরিষেবা দেওয়ার লক্ষ্যে আমরা নতুন দলীয় কার্যালয়ের উদ্বোধন করলাম। তার সঙ্গে সঙ্গে এলাকার দুঃস্থ মানুষদের হাতে বস্ত্র বিতরণ করা হলো। আগামী দিনে পার্টি কর্মীরা এলাকার মানুষদের স্বার্থে কাজ করার লক্ষ্যে এই দলীয় কার্যালয়েকে ব্যবহার করবে।

পঞ্চায়েত সমিতির সদস্যা সুজাতা সাহা জানান এলাকার মানুষদের পাশে দাঁড়ানোর জন্যই আমরা এই খানে নতুন করে দলের কার্যালয় উদ্বোধন করলাম। এই কার্যালয় থেকে দল পরিচালনা করা যেমন সুবিধা হবে তেমনি আসন্ন পঞ্চায়েত ও লোকসভা নির্বাচনের আগে দল পরিচালনা করা সুবিধা হবে।