ছুটির দিনকে কাজে লাগিয়ে বাড়ি বাড়ি প্রচারের ঝড় তুলছে মাথাভাঙ্গা ১১ নম্বর ওয়ার্ডের সিপিএম প্রার্থী।

0
359

মনিরুল হক, কোচবিহারঃ আগামী ২৭ শে ফেব্রুয়ারি কোচবিহার জেলার পৌরসভার সাথে মাথাভাঙ্গা পৌরসভা নির্বাচনও অনুষ্ঠিত হতে চলেছে। তৃণমূল এবং বিজেপিকে টেক্কা দিয়ে নির্বাচন ঘোষণার দিন সন্ধ্যা নাগাদ বামফ্রন্টের ১২ ওয়ার্ড বিশিষ্ট মাথাভাঙা পৌরসভার প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করে দিয়েছিল। সম্প্রতি তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী ঘোষণা করেছে। বিজেপি এখনো পর্যন্ত প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করতে পারেনি। দুদিন নমিনেশন জমা দেওয়ার তারিখ ছিল। কোন রাজনৈতিক দল ওই দুই দিন মনোনয়নপত্র দাখিল করেনি। তবে আগামীকাল আবারো বাজিমাত করতে চলেছে বামফ্রন্টের সিপিআইএম প্রার্থীরা বলে জানা জাচ্ছে। আগামীকাল নিয়ম অনুসারে মহকুমা শাসকের দপ্তরে গিয়ে বামফ্রন্টের প্রার্থীরা মনোনয়ন দাখিল করবেন বলে এমনটাই সিপিএম সূত্রের খবর।
আজকে ছুটির দিন, এই দিনটাকে এতোটুকু সময় নষ্ট করতে রাজি নন বামফ্রন্টের প্রার্থীরা। আজ সকাল সকাল বাড়িতে চা না খেয়েই মানুষের বাড়িতে গিয়ে চায়ের চুমুক দিলেন মাথাভাঙা শহরের ১১ নং ওয়ার্ডের বামফ্রন্টের প্রার্থী মদন কর। সঙ্গে ছিলেন বামফ্রন্টের বর্ষিয়ান নেতা প্রাক্তন কাউন্সিলার শেখর রঞ্জন ধর। তার সঙ্গে অন্যান্যরাও ছিলেন। প্রায় দুপুর হতে চলল তবুও দুপুরের খাবারের কথা ভুলে গিয়ে ভোট বড় বালাই। তাই প্রত্যেকটি বাড়িতে গিয়ে গিয়ে ভোট প্রার্থনা করছেন সিপিএমের তুর্কি নেতা মদন চন্দ্র কর।
মদন চন্দ্র কর তিনি সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বলেন, আমরা সরকারে না থাকলেও প্রতিনিয়ত সকাল-বিকাল ২৪ ঘন্টা আপদ বিপদে মানুষের পাশে থাকি প্রতিনিয়ত ও জনসংযোগ আমাদের রয়েছে। আমি নিজে এই ওয়ার্ডে দীর্ঘদিন ধরে রাজনীতি নিয়ে বড় হয়েছি। ছাত্র রাজনীতি থেকে আজকে যুব আন্দোলন পরবর্তী সময়ে গণ আন্দোলনের মধ্য দিয়ে আজকে ১১ নম্বর ওয়ার্ডের সিপিআইএম প্রার্থী। প্রত্যেকটি মানুষ আমার চেনা রয়েছে প্রত্যেকের বাড়িতে যাচ্ছি সবাই আশীর্বাদ করছেন দেখা যাক ২৭ এ ফেব্রুয়ারি সুন্দরভাবে গণতান্ত্রিক ভাবে যদি মানুষ ভোট প্রয়োগ করে তাহলে ১০০% আমি জয়লাভ করবো এটা আমার দৃঢ় বিশ্বাস।
তবে তিনি বিরোধীদের আক্রমণ করতে ছাড়েননি তিনি বলেন, বেকারত্বের জ্বালা প্রত্যেক দিন বাড়ছে কোন নিয়োগ নেই কোন কলকারখানা নেই কোনো সত্যতা নেই দুর্নীতিতে ভরে গেছে বর্তমান সরকারের আমল। আমরা পুনরায় ক্ষমতায় এলে পৌর নাগরিক পরিষেবা থেকে শুরু করে আরো যা যা সমস্যা আছে তা দূর করবার চেষ্টা করব।
প্রাক্তন কাউন্সিলর বামফ্রন্টের বর্ষিয়ান সিপিএম নেতা শেখ রঞ্জন বলেন, আমি পাঁচ বছর কাউন্সিলর এর দায়িত্বে ছিলাম অনেক কাজ করা হয়তো সম্ভব হয়নি মদন ক্ষমতায় এলে সেই সমস্ত কাজ গুলো যাতে ত্বরান্বিত করা যায় তার জন্য অংশীদার হিসেবে আমি ওর সহযোগিতা করছি।
১১ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা অরুণ সাহা এবং বিমল চন্দ্র রায় বলেন, ভোট এসেছে সব প্রার্থীরাই আমাদের দরজায় আসবে নিশ্চয়ই কাউকে ফেরানো সম্ভব না সবাই কেই নিয়ে চলতে হবে সবার কথা শুনবো। তবে আজ সকাল সকাল বামফ্রন্টের প্রার্থী মদন কর উনি ভোট চাইতে এসেছিলেন উনার কথা শুনেছি দেখা যাক ২৭ শে ফেব্রুয়ারি আসুক তারপর ভোটবাক্সে কি হয় সেই নিয়ে এখন অপেক্ষায় রয়েছে মাথাভাঙা শহরের ১১ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দারা।
অপরদিকে তৃণমূল কংগ্রেসের মাথাভাঙা শহর ব্লক সভাপতি বিশ্বজিৎ রায় বলেন, সিপিএম বিজেপি যতই প্রচার করুক সরকার আমাদের রয়েছে পৌরসভা আমরাই দখল করব এ নিয়ে কোন সন্দেহ নেই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here