গ্রামের বেহাল কাঁচা রাস্তা পাকা করার কথা বলে এলাকাবাসীর প্রায় পাঁচ হাজার গাছ কাটার পরেও রাস্তা পাকা হয়নি, অভিযোগ গ্রামবাসীদের।

0
236

নিজস্ব সংবাদদাতা, মালদাঃ- গ্রামের বেহাল কাঁচা রাস্তা পাকা করার কথা বলে এলাকাবাসীর প্রায় পাঁচ হাজার গাছ কাটার পরেও রাস্তা পাকা হয়নি। বরং সংশ্লিষ্ট সেই রাস্তা পাকা না করে ঘুরিয়ে অন্য রাস্তা পাকা করা হচ্ছে। এই নিয়ে ক্ষুব্ধ এলাকার মানুষজন ব্লক প্রশাসন সহ বিভিন্ন দপ্তরে চিঠি দিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থার দাবি জানিয়েছেন। প্রশাসনের পক্ষ থেকে খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থার আশ্বাস দেওয়া হলেও এখনো রাস্তা পাকা করার কাজ শুরু হয়নি। ফলে চরম ক্ষোভ বেড়ে চলেছে এলাকায়। দাবি মেনে বেহাল কাঁচা রাস্তাটি পাকা না হলে রাস্তা অবরোধ সহ ব্যাপক আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন এলাকার ভুক্তভোগী মানুষজন।
প্রসঙ্গত, হবিবপুর থানার বৈদ্যপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের সীমান্তবর্তী একটি বড়ো গ্রাম দাল্লা। এলাকায় রয়েছে প্রচুর জনবসতি। এলাকায় দাল্লা দক্ষিণ পাড়া থেকে চাকলি দুর্গাতলা পর্যন্ত প্রায় চার কিলোমিটার কাঁচা রাস্তা দীর্ঘ বছর থেকেই চলাচলের অযোগ্য হয়ে আছে বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ। দাল্লা এলাকার দক্ষিণ পাড়া থেকে চাকলি দুর্গাতলা পর্যন্ত প্রায় চার কিলোমিটার কাঁচা রাস্তাটিই পাকা করার দাবি দীর্ঘ দিনের।
রাস্তা প্রসঙ্গে দাল্লা এলাকার একজন বাসিন্দা হরপ্রসাদ রায় বলেন,” দাল্লা দক্ষিণ পাড়া থেকে চাকলি দুর্গাতলা পর্যন্ত প্রায় চার কিলোমিটার কাঁচা রাস্তা রয়েছে।রাস্তার মাঝে রয়েছে বিভিন্ন জনবসতি। প্রতিদিন কমপক্ষে দশ হাজার মানুষজনকে চলাচল করতে হয় এই রাস্তা দিয়ে। অথচ গুরুত্বপূর্ণ এই কাঁচা রাস্তাটি চলাচলের অযোগ্য হয়ে থাকায় অবর্ণনীয় সমস্যায় জনসাধারণ। কিছুদিন আগে এই কাঁচা রাস্তাটি পাকা করার জন্য অনুমোদনের কথা শুনে খুশি হয়েছিলেন এলাকার মানুষজন। রাস্তাটি পাকা করার জন্য রাস্তার দুধারে থাকা এলাকাবাসীর প্রায় পাঁচ হাজার গাছও কাটা হয়েছে। কিন্তু কোনো এক অজ্ঞাত কারণে সংশ্লিষ্ট কাঁচা রাস্তাটি পাকা না করে অন্যদিকে ঘুরিয়ে একটি গুরুত্বহীন রাস্তা পাকা করা হচ্ছে। এই নিয়ে প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ জানানো হলেও কোনো পদক্ষেপ দেখা যায় নি। এই নিয়ে এলাকায় চরম ক্ষোভ বাড়ছে। রাস্তা পাকা করার দাবিতে আন্দোলনের ব্যাপক প্রস্তুতি শুরু হয়েছে।”
এলাকার বাসিন্দা নির্মল বিশ্বাস,বিনয় হালদার সহ আরও অনেকেই রাস্তাটির প্রসঙ্গে দুর্ভোগ নিয়ে ব্যাপক ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তাঁরা বলেন, ” হবিবপুরের কেন্দপুকুর থেকে চাকলি দুর্গাতলা পর্যন্ত দুরত্ব প্রায় ১৮ কিলোমিটার। এই রাস্তাটি রাস্তাটি পাকা হওয়ার কথা শুনে সকলে খুশি হয়েছিলেন। এরপর কেন্দপুকুর থেকে আড়াগাছি পর্যন্ত প্রায় ১৪ কিলোমিটার রাস্তার কাজ হয়েছে। কিন্তু কোনো এক অজ্ঞাত কারণে বাকী চার কিলোমিটার চাকলি দুর্গাতলা অভিমুখে পাকা না হয়ে অন্যদিকে একটি গুরুত্বহীন রাস্তা পাকা হচ্ছে। এই নিয়ে এলাকায় রাস্তা নিয়ে বঞ্চিত মানুষজনের ক্ষোভ বেড়েই চলেছে । কারণ বাকি রাস্তা দাল্লা দক্ষিণ পাড়া থেকে চাকলি দুর্গাতলা পর্যন্ত রাস্তাটি বেহাল হয়ে আছে। চলাচলের অযোগ্য রাস্তা দিয়ে কৃষকরা যেমন তাঁদের কৃষিজ ফসল নিয়ে যেতে চরম দুর্ভোগে পড়েন। তেমনি এলাকার কোনো সন্তান সম্ভবা মা বা অন্য রোগীদের হাসপাতালে নিয়ে যেতে অ্যাম্বুলেন্স ঢোকে না। ফলে রোগী নিয়ে চরম সমস্যায় পড়তে হয় এলাকার মানুষজনকে। রাস্তাটি পাকা করার জন্য গাছ কেটেও কেন পাকা হলো না সেই নিয়ে বিভিন্ন সরকারি দপ্তরে অভিযোগ জানিয়েছেন এলাকাবাসী। শীঘ্রই দাবি মেনে রাস্তা পাকা করার কাজ শুরু না হলে রাজ্য সড়ক অবরোধ করে কঠিন আন্দোলনে নামবেন এলাকার মানুষজন।”
রাস্তা প্রসঙ্গে হবিবপুরের বিডিও সুপ্রতীক সাহা ফোনে জানিয়েছেন” সংশ্লিষ্ট রাস্তাটি পাকা না করে ঘুরিয়ে অন্যদিকে চার কিলোমিটার রাস্তা পাকা করার অভিযোগ পত্র জমা পড়েছে। প্রধানমন্ত্রী সড়ক যোজনার রাস্তাটি জেলা পরিষদের অধীনে। তাই সমস্যা সমাধানে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের সঙ্গে কথা বলে দ্রুত প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করার জন্য বলা হয়েছে।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here