শেষের কবিতা : সুরভি জাহাঙ্গীর।

0
409

ভীষণ বোকা ছিলাম আমি,তাই তোমাকে ভালোবেসে কাছে পেতে ” শেষের কবিতার ” কেতকী হয়ে গেলাম।

তোমাকে কাছে পাওয়ায় জিতে যাওয়ায় মিথ্যায়,সত্যিই হেরে গেলাম!

সেদিন সত্যিই আমি ভুল করে ভুল মনে ভেবেছিলাম, তাই তোমার সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলাম।
আর বোকা মনে গর্ব করে বলছিলাম.. আজ থেকে তুমি শুধুই আমার!
আর ঠিক সেদিনই তোমাকে চিরতরে হারিয়ে ছিলাম। সেই থেকে তুমি মিথ্যা কাছে থাকার ছলে করে ,ইচ্ছার দূর বনের লাবন্য মনে ভালোবাসার দ্বীপান্তর নিলে।

জানো, আজ সত্যিই বলছি সরল মনে বুঝতেই পারি নাই, তুমি আর সে মিলে মনে মনে ভালোবাসার চন্দন মেখে “ব্যর্থতায় প্রেমের স্বার্থকতা” র মত অমৃতবাণী লিখে, পাঠকের মনে সুঘ্রাণ ছড়িয়ে দিবে!

যখন বুঝতে পারলাম ততদিনে ” শেষের কবিতা ” লেখা,শেষ হয়ে গেছে।
ততদিনে তোমরা দু’জনে মিলে শেষের কবিতার সবটা জুড়ে, দুর্লভ প্রেমের চরিত্র লাবণ্য আর শোভনলাল হয়ে গেছো।
সেই থেকে তোমরা দু’জনে মিলে আজো, পাঠকের অন্তরের অফুরন্ত ভালোবাসায় স্মরণীয় বরণীয় জনপ্রিয় হয়ে আছ।

তোমাদের শুভকামনা জানতে ভালোবাসা হীন শূন্যমন, তবু্ও ফুল হাতে মহান হওয়ার অপ্রাণ চেষ্টার তেষ্টায় অমিত বাবু শান্তনা পুরষ্কারের হাততালিতে অভিনন্দিত হলেন।

অমিত বাবুকে ভেবে সত্যি সত্যিই খুব মায়া হয়! আহা! বেচার!

আর আমি?!আমি তোমাকে কাছে পওয়ার ভালোবাসার পাগলামিতে সারাজীবনের জন্য পাঠকের চোখের চক্ষুশূল খল চরিত্র হয়ে রইলাম।
তোমার ইচ্ছে মত গড়িয়ে খাবার ঘড়ার জল হয়ে অনন্ত অপমানের তৃষ্ণা মিটালাম।

ফুলের নামে কেতকী হয়েও,পাঠকের কৌতুকের টিপ্পনীর কেটকী নামে পরিচিতি পেলাম।
ভীষণ কষ্ট হয় আমার!
তাইতো রাতে ফুটে আলোর গ্লানিতে অভিমানের সুঘ্রাণ ছড়িয়ে ঝরে কাঁদি!

তবে আজকাল খুব মনে হয়, বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ বেঁচে থাকলে আমি তাঁকে নিশ্চয়ই জিজ্ঞাসা করতাম,কবি কেন কেতকীর ভালোবাসার সাথে এমনকরে খেলা করা হলো!?

তবে আমার বিশ্বাস কবি গুরু বেঁচে থাকলে নিশ্চয় মুচকি হেসে দাড়ি নেড়ে বলতেন,কেতকী চরিত্র না থাকলে ” শেষের কবিতা ” কখনোই এ্যাতো বিখ্যাত হত না।আর কেতকী না থাকলে লাবণ্য আর শোভন লাল পাঠকের অফুরন্ত ভালোবাসা কখনোই পেত না।
কেতকী ” শেষের কবিতার প্রাণ প্রতিমা!

তিনি হয়ত আমার দুঃখ ঘোচাতে সান্ত্বনা দিতে, আরো বলতেন,কেতকী যতই দুঃখ ভোরে ঝরে পড়ুক না কেন..কেতকীর সকল অভিমানের সুঘ্রাণ সারা দিনমান বাতাসে বহিয়া বেড়ায় পাঠকের মনের ভাবনার বাহিরের, গভীর বনে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here