সাঁতরাগাছি বাকসাড়া লিটল ম্যাগাজিন মেলা।

0
251

সাঁতরাগাছি-হাওড়া, নিজস্ব সংবাদদাতাঃ-সাঁতরাগাছি পাখিরালয় সংলগ্ন মিলনতীর্থ প্রাঙ্গণে প্রথম বর্ষ সাঁতরাগাছি বাকসাড়া লিটল ম্যাগাজিন মেলা ও শিশু মিলন উৎসব হয়ে গেল বিগত ২৫ এবং ২৬ শে ডিসেম্বর ২০২১ ।
করোনা বিধিনিষেধ সম্পূর্ণ ভাবে মেনেই মেলা প্রাঙ্গণে সবাই এসেছিলেন।
অনুষ্ঠানের শুরুতে প্রদীপ জ্বালিয়ে আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন বিশিষ্ট শিশু সাহিত্যিক ষষ্ঠীপদ চট্টোপাধ্যায়। এক বিশেষ অভিনবত্ব ছিল শুরুতেই পবিত্র গঙ্গাজলে উপস্থিত পত্রিকার সম্পাদকেরা, মাননীয় অতিথিরা, উপস্থিত কবি ও সাহিত্যিকেরা, আগামীর শুভ কামনা করে ফুলের অঞ্জলী প্রদান করেন। বাতাবরণ টি স্নিগ্ধ হয়ে ওঠে।
বিশেষ অতিথি ও মেলার উদ্বোধক ষষ্ঠী বাবু তার সুবিন্যস্ত বক্তৃতায় আগামী কিশোর প্রজন্মকে লেখালেখির জন্য যথেষ্ট উৎসাহ প্রদান করেন। আগামী দিনে তারাও যেন তাদের সৃষ্টি দিয়ে সাহিত্য ভান্ডারকে এগিয়ে নিয়ে যায় সে কথাও উল্লেখ করেন।

বললেন মাত্র বাইশ বছর বয়সে তার লেখা পাণ্ডব গোয়েন্দা । যা আজও সমান জনপ্রিয় শুধু নয়, কিশোরদের ছাড়াও বাঙালির চেতনায় অ্যাডভেঞ্চারের উন্মাদনা জাগিয়ে তোলে আজও।
এই দুই দিনই বিশিষ্ট মানুষ ছিলেন মঞ্চ আলো করে। তাদের মধ্যে নীতিন বিশ্বাস, বরুণ চক্রবর্তী, সুরজিৎ চক্রবর্তী, দেবব্রত ঘোষ মলয়,
সবাসের সম্পাদক অমিতাভ দাস প্রমুখ।
উদ্বোধন সঙ্গীতে ছিলেন ঈশিতা খাঁ। সাবাসের আয়োজনে এই মেলাকে যারা সাহায্য করেছিলেন সেইসব পত্রিকাগুলি হল ইলশেগুঁড়ি, শব্দসেনা, কাকলিকথা,সাহিত্য প্রয়াসী, মিলন, অকৈতব, আদিনামা, আমাদের পদক্ষেপ,মনিমালার দেশ,ঐকতান গবেষণাপত্র, পশ্চিমবঙ্গ বিজ্ঞান মঞ্চ প্রভৃতি।
প্রথম দিনে মেলায় বিশিষ্ট শিল্পীরা সঙ্গীত পরিবেশন করেন। যেমন অনিতা পাল, মীনাক্ষী বন্দোপাধ্যায়, ঋষভ ঘোষ প্রমুখ।
এইদিন স্বরচিত কবিতা পাঠ করেন অভীক চৌধুরী, মৌসুমী লাহিড়ী, মুকুল ভট্টাচার্য, আশীষ বন্দোপাধ্যায়,বরুণ চ্যাটার্জি, অনামিকা নন্দী, প্রিয়াঙ্কা ব্যানার্জী প্রমুখ।
পরেরদিন ২৬শে মঞ্চে স্বরোচিত কবিতা পাঠ করেন অমিত মুখোপাধ্যায়, সুদীপ্ত পাড়িয়াল,তপন কোলে,শক্তিসংকর সামন্ত,তুহিন মিত্র,গৌতম দে, প্রমুখ। এদিন বাতাবরণ সুরে ভরিয়ে দেন সঙ্গীতশিল্পী নির্মাল্য আদক, রাজকুমার ঘোষ প্রমুখ। তিনটি শ্রুটিনাতক পরিবেশিত হয়।
অন্যতম আকর্ষণ ছিল গানের সঙ্গে সঙ্গে অঙ্কন ।
মেলায় উপস্থিত অনেক মানুষ ওই দুটি দিন অক্ষর ও শব্দ দিয়ে বাঁধানো বইগুলির মাধ্যমে প্রচুর আনন্দ কুড়িয়ে নিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here