স্থগিত হয়ে গেল পঞ্চানন বর্মা বিশ্ববিদ্যালয়ের খলিসামারি ক্যাম্পাসের ভার্চুয়ালি পঠন-পাঠনের সূচনার অনুষ্ঠান।

0
226

মনিরুল হক, কোচবিহারঃ বছরের শুরুতেই আবারো মন খারাপ খলিসামারি এলাকার মানুষের। কথা থাকলেও কথা রাখা হলো না মুখ্যমন্ত্রীর। বিশেষ কারণে শেষ পর্যন্ত পহেলা জানুয়ারি আনন্দ ঘন মুহূর্তের মধ্যে মাঝখানে ছেদ পড়ে গেল। শেষ মুহূর্তে স্থগিত হয়ে গেল মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পঞ্চানন বর্মা বিশ্ববিদ্যালয় এর খলিসামারি ক্যাম্পাসের ভার্চুয়ালি পঠন-পাঠনের শুভসূচনা অনুষ্ঠান।
বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য ডক্টর দেব কুমার মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন, শনিবার সন্ধ্যায় রাজ্য সরকারের কাছ থেকে যে নির্দেশিকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছে এসে পৌঁছেছে। তাতে করোনা সংক্রমনের বাড়বাড়ন্তের কারণে মুখ্যমন্ত্রীর ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠান স্থগিত রাখা হয়েছে। তবে পরবর্তীতে কবে অনুষ্ঠান হবে বা আগামী তেশরা জানুয়ারি পূর্বঘোষিত পঠন-পাঠন চালু হবে কি না, সে ব্যাপারে প্রশ্ন করলে উপাচার্য বলেন, আজ আমি কিছু জানাতে পারবো না। রাজ্য সরকারের নির্দেশ মতো মুখ্যমন্ত্রীর অনুষ্ঠান স্থগিত রাখা হয়েছে।
বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার ডক্টর আব্দুল কাদের সাফেলি অবশ্য বলেছেন, মুখ্যমন্ত্রীর অনুষ্ঠান স্থগিত রাখা হলেও বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসের পড়ুয়াদের পঠন-পাঠন তেশরা জানুয়ারি শুরু হবে। মুখ্যমন্ত্রীর ভার্চুয়ালি পঠন-পাঠনের সূচনা অনুষ্ঠান না হওয়ায় খলিসামারি প্রথমে হতাশ হয়ে পড়লেও পঞ্চানন বর্মা বিশ্ববিদ্যালয়ের খলিসামারি ক্যাম্পাসে বাংলা ও ইতিহাস বিষয়ে পঠন-পাঠন নির্দিষ্ট দিনের শুরু হবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন রেজিস্টার।
পূণ্যভূমি খলিসামারি পঞ্চানন বর্মা মেমোরিয়াল এন্ড ডেভেলপমেন্ট ট্রাস্টের সম্পাদক তথা তৃণমূল কংগ্রেসের কোচবিহার জেলার সভাপতি গিরীন্দ্রনাথ বর্মন বলেন, মুখ্যমন্ত্রী উদ্যোগ নিয়ে খলিশামারিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বিতীয় ক্যাম্পাস অনুমোদন ও শিলান্যাস করেছেন। এটা আমাদের কাছে অন্যতম বড় পাওয়া। আমরা চাইব মুখ্যমন্ত্রী ভার্চুয়ালি নয় তিনি সশরীরে খলিসামারি ক্যাম্পাসে পদার্পন করবেন। তবে করোনার কারণে ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠান করা যাচ্ছে না এ বিষয়ে কিছু বলার নেই। এটা মানতেই হবে। খলিশা বাড়ি ক্যাম্পাসে বাংলা ও ইতিহাস বিষয়ে ৫০ জন করে ছাত্র ছাত্রীর পঠন-পাঠনের অনুমতি মিলেছে।
বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানানো হয়েছে, ইতিমধ্যে বাংলা বিভাগে ৫০ জন ছাত্র-ছাত্রী ভর্তির প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে। তবে ইতিহাস বিষয়ে বেশ কিছু আসন শূন্য রয়েছে। ছাত্র-ছাত্রীরা চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম অনুযায়ী আবেদন করলে ইতিহাস বিষয়ের উপর বিবেচনা করা যেতে পারে।
পূণ্যভূমি খলিসামারি পঞ্চানন বর্মা মেমোরিয়াল এন্ড ডেভেলপমেন্ট রাষ্ট্রের কোষাধক্ষ্য ডক্টর রাজর্ষি বিশ্বাস বলেন, খলিসামারি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের দাবিতে আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত প্রতিটি মানুষ এবং পঞ্চানন অনুরাগীরা অধীর আগ্রহে তাকিয়ে রয়েছেন আগামী তেসরা জানুয়ারির দিকে। তবে দেখা যাক, নতুন বছরে কোন একদিন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মনীষী রায় সাহেব পঞ্চানন বর্মার জন্মভিটা খলিসামারিতে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে পদার্পণ করেন কিনা। সেদিকেই অধীর আগ্রহে তাকিয়ে রয়েছে খলিসামারি মানুষ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here