পাঠানখালিতে সোনার দোকানে চুরি,তদন্তে নেমে ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই তিন দুষ্কৃতীকে গ্রেফতার,উদ্ধার চুরির গহনা।

0
353

সুভাষ চন্দ্র দাশ,ক্যানিং – চুরির ঘটনায় তদন্তে নেমে ২৪ ঘন্টার ঘন্টার মধ্যে চুরির সামগ্রী সহ ৩ চোর কে গ্রেফতার করলো পুলিশ।ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ ২৪ পরগনার গোসাবা থানার পাঠানখালির ঝাউখালি বাজার এলাকায়। ধৃত তিনজন হল আমির আলি মোল্লা,সাদ্দাম মোল্লা,সুকুমার দাস।ধৃত তিন চোর বাড়ি ঘুটিয়ারীশরীফ,ক্যানিং ও তালদি এলাকায়।
স্থানীয় ও পুলিশ সুত্রে জানা গিয়েছে ঝাউখালি বাজারে সন্দীপ মন্ডল নামে জনৈক এক ব্যাক্তির সোনার দোকান রয়েছে। অন্যান্য দিনের মতো তিনি বুধবার রাতে সোনার দোকান বন্ধ করে বাড়িতে চলে গিয়েছিলেন।বৃহষ্পতিবার সকালে দোকান খোলার সময় চুরির ঘটনা নজরে পড়ে।ঘটনার খবর জানিয়ে ওইদিনই গোসাবা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন দোকানের মালিক সন্দীপ মন্ডল।অভিযোগ পেয়েই তদন্তে নামে গোসাবা থানার পুলিশ।
তদন্ত শুরুর ২৪ ঘন্টার মধ্যে বমাল তিন চোর কে পাকড়াও করে পুলিশ। ধৃতদের কাছ থেকে ১ টি সিঁদুর কৌটা,৬ টা সিঁদুর কাঁটা,৩ টি তামার মাদুলি,২ টি তামার পাদুকা,৫ জোড়া কানের রিং,৭ টি রুপোর লকেট,কানের ড্রপ ৩ জোড়া,২ টি টুকরা অঙ্কুট,১টি আংটি,১ রুপোর বাসুরি,ব্রোঞ্জ এবং রুপোর চুড়ির ৬ টি,তামার মূর্তির ২ টি,৮ টি সিলভার এবং সোনালি রঙের নেকলেস,১ টি সোনালী রঙের ব্রেসলেট,৯ টি সোনার নাকের নথ,১ জোড়া রুপোর নূপুর সহ চুরির কাজে ব্যবহৃত লোহার তৈরি ছুরি ২ টি,১ ছেনি,২ টি রেঞ্জ,১ টি স্ক্রু ড্রাইভার,১টি হাতুড়ি,১ টি আয়রন লিভার,২ টি রৌপ্য মুদ্রা, হ্যাকসো ব্লেড ১টি।