খুশির হাওয়া মেলা দোকানির এবং বিবাহ দিনক্ষণ ঠিক হওয়া পাত্র-পাত্রীর পরিবার পরিজনদের।

0
399

নদীয়া, নিজস্ব সংবাদদাতা:- খোলা মাঠে মেলা করার জন্য রাজ্য সরকারের অনুমতি দেওয়ার খবর শনিবার দুপুরে সেই জানার পরেই নদীয়ার শান্তিপুরের নৃসিংহপুর মেলা কমিটির লোকজনের মধ্যে এখন আনন্দের পরিবেশ। প্রতিবছর মকর সংক্রান্তির দিন থেকে নৃসিংহপুরে মেলা বসে। হয়ে থাকে কালীপুজো। দূরদূরান্ত থেকে ব্যবসায়ীরা যেমন মেলায় যোগ দিতে আসেন, মেলা দেখতে আসেন একাধিক মানুষও। বিভিন্ন ধরনের অনুষ্ঠান হয়ে থাকে। যদিও এবার করোনার বিধি-নিষেধ জারি থাকার কারণে কালীপুজো হলেও মেলা শুক্রবার থেকে সেইভাবে বসেনি। না জেনে দূর-দূরান্ত থেকে এসে পড়া ব্যবসায়ীরা কয়েকজন সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে মেলায় বসে ছিলেন। স্থানীয় ব্যবসায়ীরা মেলায় যোগ দেননি। মেলা কমিটি যাবতীয় অনুষ্ঠান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন।যদিও গঙ্গাসাগরের মেলা হলেও কেন হবেনা নৃসিংহপুরের মেলা, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষ। যদিও মেলা যাতে করা যায়, তার জন্য চেষ্টা করবেন বলে মেলা কমিটির লোকজনকে আশ্বাস দিয়েছিলেন শান্তিপুরের বিধায়ক ব্রজকিশোর গোস্বামী। অবশ্য শেষ পর্যন্ত তিনি মেলা করার অনুমতি আদায় করতে পারবেন কিনা তা নিয়ে সংশয় ছিল। তবে অবশেষে শনিবার দুপুরে রাজ্য সরকার মেলা করার অনুমতি দেওয়ায় মেলা কমিটির লোকজন, স্থানীয় ব্যবসায়ী এবং সাধারণ মানুষের মধ্যে খুশির হাওয়া বইতে শুরু করেছে। আবার নতুন করে সেজে উঠতে চলেছে মেলা। তবে দোকানীরা ক্রেতাদের মাস্কপরিধান করে আসার আহ্বান জানিয়েছেন।
তবে আজ ঘোষিত হওয়া বিষয় হলো দিনক্ষণ ঠিক হয়ে যাওয়া বিবাহর প্রতীক্ষায় থাকা পাত্র-পাত্রীদের এবং তাদের আত্মীয় পরিজনদের। তবে মুখ্যমন্ত্রী কে ধন্যবাদ জানিয়ে তারাও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার অঙ্গীকারবদ্ধ হয়েছেন।