জব কার্ড হোল্ডারদের বঞ্চিত রেখে রাতের অন্ধকারে জেসিপি মেশিন দিয়ে একশো দিন প্রকল্পে পুকুর খননের অভিযোগ উঠেছে।

0
255

মালদা, নিজস্ব সংবাদদাতা:-জব কার্ড হোল্ডারদের বঞ্চিত রেখে,রাতের অন্ধকারে জেসিপি মেশিন দিয়ে একশো দিন প্রকল্পে পুকুর খননের অভিযোগ উঠেছে হরিশ্চন্দ্রপুর-২ নং ব্লকের দৌলতনগর গ্রাম পঞ্চায়েতের টালবাংরুয়া বুথের তৃনমূল কংগ্রেসের পঞ্চায়েত সদস্য আব্দুল গাফফারের বিরুদ্ধে।পুকুর খননের কাজ বন্ধ করে দিয়ে ব্লক প্রশাসন,এসডিও ও বিডিওর নিকট লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন টাল বাংরুয়া বুথের প্রায় একশো বঞ্চিত জব কার্ড হোল্ডার।

জব কার্ড হোল্ডারদের অভিযোগ সাধারণ মানুষকে বঞ্চিত করে দলীয় ক্ষমতার জোরে রাতের অন্ধকারে জেসিপি মেশিন দিয়ে একাধিক পুকুর খনন করে ভুয়ো জব কার্ড দিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকা তুলে আত্মসাৎ করেছে ওই পঞ্চায়েত সদস্য।একশো দিনের কাজের প্রকল্পে যাঁদের জবকার্ড আছে,তাঁদের কাজ দেওয়া হচ্ছে না।যেখানে সরকারি নির্দেশে বলা হচ্ছে,একশো দিনের কাজের প্রকল্পে এলাকার মানুষকে বেশি বেশি করে কাজ দেওয়ার জন্য।ইতিমধ্যে ভিন্ রাজ্য থেকে বহু পরিযায়ী শ্রমিক কাজ হারিয়ে গ্রামে ফিরে এসেছেন।এঁদের মধ্যে অনেকেরই জমানো টাকা শেষ হয়ে গিয়েছে। কাজ না থাকায় সংসার চালাতে সমস্যায় পড়তে হচ্ছে।

পঞ্চায়েত সদস্য আব্দুল গাফফার জানান তার বিরুদ্ধে উঠা অভিযোগ একেবারে ভিত্তিহীন।যারা অভিযোগ জানিয়েছেন তারা কাজ না করে টাকা দাবি করছিল।টাকা দিতে অস্বীকার করায় এই ধরনের মিথ্যা অভিযোগ করেছে।তারা কাজ করতে চাইলে কাজ করতে পারে।

দৌলত নগর গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান পিন্টু কুমার যাদব জানান লিখিত কোনো অভিযোগ পাননি। মোবাইল ফোন মারফতে তাকে অভিযোগ জানানো হয়েছে। লিখিত অভিযোগ পেলেই তদন্ত করে বিষয়টি দেখবেন।

হরিশ্চন্দ্রপুর-২ নং ব্লকের বিডিও বিজয় গিরি জানান লিখিত অভিযোগ পেয়েছেন।জেসিপি মেশিন দিয়ে একশো দিন প্রকল্পে মাটি কাটার নিয়ম নেই।অভিযোগ সত্য হলে ওই পঞ্চায়েত সদস্যের বিরুদ্ধে আইনত ব্যবস্থা নিবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here