পৌরসভা নির্বাচনের আগে ঘর ভাঙল বিজেপির, বড়সড় ধাক্কা গেরুয়া শিবিরে।

0
301

মনিরুল হক, কোচবিহারঃ আগামী ২৭শে ফেব্রুয়ারি রাজ্যের অনান্য পৌরসভার সাথে সাথে মাথাভাঙ্গা পৌরসভায়ও নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। সমস্ত রাজনৈতিক দল প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নেমেছেন। মাথাভাঙা শহরে মোট ১২টি ওয়ার্ড রয়েছে। তার মধ্যে ১০টি ওয়ার্ডে ভোট হচ্ছে। বাদবাকি দুটি বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় ইতিমধ্যে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী জয়লাভ করেছে। আর এবার নির্বাচনের কয়েক দিন আগেই বিজেপির বড়োসড়ো ভাঙ্গন মাথাভাঙ্গা পৌরসভা ৯নং ওয়ার্ডে। মাথাভাঙা শহরের ৯ নং ওয়ার্ডে তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী কবিতা রায়ের সমর্থনে একটি সভায় বিজেপির সভাপতি বিজেপির সমস্ত পদ ছেড়ে দিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করলেন।
উল্লেখ্য, বিজেপির মাথাভাঙ্গা পৌরসভা ৯ নং ওয়ার্ডের সভাপতি নিখিল সূত্রধর এদিনের তৃণমূলের সভায় কোচবিহার জেলা প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের চেয়ারম্যান তৃণমূল কংগ্রেস নেতা হিতেন বর্মন এর হাত থেকে তৃণমূলের পতাকা নিয়ে বিজেপি ছেড়ে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করেন। হিতেন বাবু ছাড়াও এই সভায় অনান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ৯ নং ওয়ার্ডের তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী কবিতা রায়, তৃণমূল কংগ্রেস নেতা সমীরণ দে, ৯নং ওয়ার্ডের তৃণমূল কংগ্রেস নেতা শফিকুল ইসলাম, কামিনী প্রামানিক, শিক্ষক নেতা প্রদীপ বর্মন, তৃণমূল কংগ্রেস নেতা শংকর বিশ্বাস, শিক্ষক নেতা শশীবালা অধিকারী, অরুনাভ গুহ সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দরা।এদের নিখিল সূত্রধর রীতিমতো দরখাস্ত করে বিজেপি ছেড়ে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করার জন্য আবেদন করেন। তৃণমূল কংগ্রেস এই আবেদন মঞ্জুর করেন। ওই আবেদনের ভিত্তিতে তৃণমূল কংগ্রেসের ভেতরে আলোচনা করে নিখিল সূত্রধর সহ আরো বেশ কয়েকজন বিজেপি কর্মীতৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করেন। নিখিল বাবু বলেন মমতা ব্যানার্জির আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে উন্নয়নে অংশ গ্রহন করবার জন্য তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করলাম।
এদিন শিক্ষকদের নিয়ে এই সভায় জেলা প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের চেয়ারম্যান হিতেন বর্মন মাথাভাঙ্গার প্রত্যেক শিক্ষক পৌরসভা নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থীদের কে জয়লাভ করানোর জন্য ঝাঁপিয়ে পড়ার নির্দেশ দেন। পাশাপাশি ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে গিয়ে মমতা ব্যানার্জীর উন্নয়নের কথা তুলে ধরার কথাও জানান। হিতেন বাবু আরো বলেন, ‘শুধু মাথাভাঙ্গা নয়। কোচবিহার জেলার হলদিবাড়ি মেখলিগঞ্জ, কোচবিহার তুফানগঞ্জ, সহ বিভিন্ন এলাকায় পৌরসভা নির্বাচন উপলক্ষে শিক্ষকদের নিয়ে যেসব সভা হচ্ছে, সেই সভায় অন্যান্যের বিভিন্ন রাজনৈতিক দলথেকেও তৃণমূল কংগ্রেস দলের সমর্থনে শিক্ষকরা সভায় যোগদান করছেন। এটা একটা ভালো লক্ষণ। আগামী ২৭শে ফেব্রুয়ারি কোচবিহার জেলায় যে পাঁচটি পৌরসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে পাঁচটি পৌরসভা তৃণমূল কংগ্রেস এককভাবে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে বোর্ড দখল করবে।’