বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগদান ১৬০০ কর্মীর।

0
278

বীরভূম, সেখ ওলি মহম্মদঃ- সদ্য শেষ পৌর নির্বাচন। আর গতকাল নির্বাচনের ফলাফল ঘোষনা হয়েছে। এই পৌরসভা নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেস ধুয়ে মুছে সাফ করে দিল বিরোধীদের। এমনকী বীরভূম জেলায় সমস্ত পৌরসভা দখল করল তৃণমূল কংগ্রেস। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুপ্রেরণায় এবং তাঁর উন্নয়ন যজ্ঞে সামিল হতে আজ বীরভূম জেলার দুবরাজপুর ব্লকের লোবা অঞ্চলে লোবা কালী মন্দিরের সন্নিকটে ১৬০০ কর্মী সমর্থক রাজ্যের ক্ষুদ্র, মাঝারি ও বস্ত্র দপ্তরের মন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিনহার হাত ধরে বিজেপি ছেড়ে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করলেন। এদিন মন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিনহা ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বীরভূম জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক সুদীপ্ত ঘোষ, বীরভূম জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের যুব সভাপতি দেবব্রত সাহা, দুবরাজপুর ব্লক তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি ভোলানাথ মিত্র, দুবরাজপুর পৌরসভার প্রাক্তন পৌর প্রধান তথা নব নির্বাচিত কাউন্সিলর পীযূষ পাণ্ডে, দুবরাজপুর পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি মিলন বাগদী, তিন কর্মাধ্যক্ষ রফিউল খাঁন, সেখ মহিম, কাসেমুল হক, লোবা অঞ্চল তৃণমূল কংগ্রেসের নেতা উজ্জল ঘোষ সহ দুবরাজপুর পৌরসভার নব নির্বাচিত কাউন্সিলরগণ এবং দুবরাজপুর ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের ১০ টি অঞ্চলের সভাপতিগণ। এদিন মন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিনহা জানান, বিজেপি দলে কিছু নাই। যা বলে তা করে না। শুধু মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দেয়। তাই তাঁরা নিজেদের ভুল বুঝতে পেরে আজ তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করলেন। অন্যদিকে দুবরাজপুর ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি ভোলানাথ মিত্র জানান, কেউ যদি এই অঞ্চলের রাজনীতির পরিস্থিতিকে অস্থির করার চেষ্টা করে তাহলে আমাদের জেলা সভাপতি যা নির্দেশ দেবেন আমরা সেই ব্যবস্থা নেব। পাশাপাশি তিনি আজ ঘোষনা করেন এই অঞ্চলের কমিটি ভাঙা হল। বর্তমানে কেউ সভাপতি থাকল না। এখন থেকে তিন িই এই অঞ্চলের দায়িত্বভার সামলাবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here