বিধায়ক এর উদ্যোগে মাতলা বৃক্ষরোপণ উৎসব।

0
259

সুভাষ চন্দ্র দাশ,ক্যানিং – যাতায়াতের রাস্তা ছিল কঙ্কালসার।এলাকা বাসীদের দাবী ছিল রাস্তা তৈরী করতে হবে।এলাকাবাসীর দুঃখ দুর্দশার কথা ভেবেই রাস্তা তৈরীর পরিকল্পনা গ্রহণ করছিলেন ক্যানিং পশ্চিমের বিধায়ক পরেশরাম দাস। রাস্তার কাজ শেষ হয়েছে প্রায়।রাস্তার কাজ সম্পূর্ণ হওয়ায় এলাকার কয়েক লক্ষ মানুষের যাতায়াতের পথ সুগম হয়।
সেই রাস্তার দুপাশে বৃক্ষরোপণ করে সৌন্দর্য্য করার পরিকল্পনা গ্রহন করে বিধায়ক। সেইমতো রবিবার দুপুরে ক্যানিংয়ের দিঘীরপাড় পঞ্চায়েতের জয়দেব পল্লি এলাকায় এক অনুষ্ঠানের মধ্যদিয়ে বৃক্ষরোপণ উৎসবের শুরু হয়।
অনুষ্ঠানে ক্যানিং পশ্চিম বিধানসভার বিধায়ক ছাড়া উপস্থিত ছিলেন ক্যানিং ১ ব্লক যুবতৃণমূল সভাপতি অরিত্র বোস,জেলা পরিষদ সদস্য সুশীল সরদার,তপন সাহা,ক্যানিং ১ পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য ভুলু মন্ডল,দিঘীরপাড় পঞ্চায়েত প্রধান অন্নপূর্ণা কুন্ডু,মাতলা ১ পঞ্চায়েত প্রধান হরেন ঘোড়ুই,বিশ্ব দাস সহ অন্যান্যরা।
এদিন বিধায়ক নিজেই বৃক্ষরোপণ করে সাধারণের উদ্দেশ্যে জানিয়েছেন ‘একটি গাছ,অজস্র প্রাণ’ ফলে গাছই পারে একমাত্র প্রকৃতির ভারসাম্য এবং সৌন্দর্য্য বজায় রেখে প্রাকৃতিক দুর্যোগ আটকাতে। ফলে আমাদেরকে প্রচুর পরিমাণ গাছ লাগাতে হবে এবং দিঘীরপাড় পঞ্চায়েত সহ ক্যানিং ১ ব্লক কে সবুজে রুপান্তরিত করতে হবে।
জেলাপরিষদ সদস্য তপন সাহা বলেন ‘গাছ বসালে হবে না। তাকে যত্ন সহকারে বড় করে তুলতে হবে। সে দায়িত্ব নিজেদের কাঁধে তুলে নিতে হবে। পাশাপাশি প্রাকৃতিক পরিবেশের ভারসাম্য বজায় রাখার জন্য প্লাস্টিক একে বারেই বন্ধ করা উচিৎ।তাহলেই সুস্থ সুন্দর পরিবেশ গড়ে উঠবে ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য। তাতে কোন প্রকার সন্দেহ নেই।’
জেলাপরিষদের অপর সদস্য সুশীল সরদার বলেন ‘পৃথিবীর বৃহত্তম ব-দ্বীপ সুন্দরবন। যার প্রায় তিন ভাগ অংশ বাংলাদের অন্তর্গত।প্রাকৃতিক বিপর্যয় এবং সুন্দরবন কে রক্ষা করতে জরুরী ভিত্তিতে বৃক্ষরোপণ করা উচিৎ’।
দিঘীরপাড় গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান অন্নপূর্ণা কুন্ডু জানিয়েছেন বিধায়ক পরেশরাম দাসের উদ্যোগে বৃক্ষরোপণ উৎসব শুরু হয়েছে। আমরা এলাকার সমস্ত রাস্তার সৌন্দর্য্য এবং প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের হাত থেকে নিজেদের তথা সুন্দরবন বাঁচার জন্য দুপাশে বৃক্ষরোপণ করার উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। যাতে করে এলাকা সবুজে পরিণত হয়।আপাতত নারিকেল,মেহগণি,সোনাঝুরি, সহ অন্যান্য ১৫০০টি বৃক্ষ রোপণ করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।আগামীদিনে এলাকার সমস্ত রাস্তার দুপাশে এবং ফাঁকা জায়গায় হাজার হাজার বৃক্ষরোপণ করা হবে বৃক্ষরোপণ উৎসবের মধ্যদিয়ে। ’