শ্রীরাধাপ্রেমরস-রসিক প্রভুপাদ শ্রী শ্রীজীব গোস্বামীর দিব্য জীবনী (পর্ব–৪) : রাধাবিনোদিনী বিন্তি বণিক।

0
448

(ইনি হলেন শ্রীধাম নবদ্বীপের শ্রীবাস অঙ্গনের প্রভুপাদ শ্রীনিমাই চাঁদ গোস্বামীর পুত্র। সিদ্ধ তিনকড়ি গোস্বামী প্রভুর থেকে ভজনশিক্ষায় শিক্ষিত একান্তভাবে রাধাদাস্যনিষ্ঠ । তাঁর দিব্য জীবনী স্মরণ করা হচ্ছে।)

রথের সময়। শ্রীবাস অঙ্গনে রথের কীর্তন গাওয়া হচ্ছে। গাইছেন প্রভুপাদ শ্রীজীব গোস্বামী। কীর্তনে প্রভুর সে কী আবেশ ! কী আকুতি! হৃদয় গলানো আহ্বান কী! শ্রবণেই প্রাণ যেন বিকল হয়ে যায় আর পবিত্র, বিশুদ্ধ, ভজন সৌরভে সুরভিত, নিষ্ঠায় নিষেবিত, প্রেমে প্লাবিত ভজনময় জগতের প্রতি মন-প্রাণ যেন এক দুর্নিবার আকর্ষণ অনুভব করে। কীর্তনের ভাবে-ভাষায়, আত্মনিবেদন-আত্নসমর্পণের অনুক্ষণ প্রচেষ্টায়, হৃদয় নিংড়ানো আবেদন-নিবেদনে শুধু কি উপস্থিত ভক্তদের প্রাণ বিকল হচ্ছে ! না , তা তো নয়। দারু মূর্তির অচল জগন্নাথও বিবশ হচ্ছেন যেন। ধরে রাখতে পারছেন না তিনি নিজেকে আর । ইচ্ছে হচ্ছে সচল হয়ে সামনে আসতে তাঁর। চেষ্টা করেও দারু মূর্তিতে নিজের উপস্থিতি আড়াল করতে যেন আর পারছেন না। যেন চাইছেন মূর্তিভেদ করে সাক্ষাৎ প্রকট হয়ে প্রিয় ভক্ত-সাধক শ্রীজীবের প্রতি নিজের অধীনতার কথা জানান দিতে । প্রমাণ দিতে নিজের ভক্তবৎসলতার কথা। তিনি যে ভক্তাধীন, ভক্তবৎসল, ভক্তপ্রাণ ভগবান!

কিন্তু তা তো সম্ভব নয়! মেলা লোকের সমাহার সেখানে। অথচ ক্রমে যে বিবশতা, আবিষ্টতা বৃদ্ধি পেয়ে চলেছে জগন্নাথের । আর তাই বুঝি আর পারলেন না নিজেকে ধরে রাখার পরিশ্রম লাঘব করতে। বিন্দু-বিন্দু ঘাম হয়ে সর্বাঙ্গ থেকে তাঁর ঝরে পড়তে লাগল সে পরিশ্রম। বড়-বড় চকোর আঁখি দুটিও যেন ভিজে যাচ্ছে। উপস্থিত ভক্তমণ্ডলী অবাক হয়ে গেলেন সেই অলৌকিক বিরল দৃশ্য দর্শন করে। এমনটাও হয় ! দারুবিগ্রহের এমন ঘর্মাক্ত কলেবর দর্শন করে দর্শনার্থীরা তখন দারুণভাবেই মুগ্ধ হলেন, ভক্তিপ্লুত হলেন । আর মনে মনে শ্রদ্ধাবনত হলেন প্রভুপাদ শ্রীজীব গোস্বামীর প্রতি; তাঁর প্রেমভক্তি পারাবারের পরিধির খানিক আন্দাজ করতে পেরে।

শ্রীজীব প্রভুপাদ প্রতিবছর রথের সময় পুরী যেতেন। কোনো কারণবশত সেবার যেতে পারেননি । তাই বুঝি শ্রীজগন্নাথ শ্রীবাস অঙ্গনে নিজের উপস্থিতি জানান দিতেই এ লীলা করলেন। তিনি যেমন ভক্তকে টানেন তাঁর রথের রশিতে টান দিতে নীলাচলে আসতে, তেমন ভক্তও যে নিজের ভক্তিতে ভগবানকে টেনে আনতে পারেন—– এ ঘটনার দ্বারা সেই প্রমাণ দিলেন তিনি ।

——–(ক্রমশঃ)

ভক্তকৃপাপ্রার্থিনী
রাধাবিনোদিনী বিন্তি বণিক

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here