মাথাভাঙ্গায় সার সংগ্রহে, সারের দোকানে লম্বা লাইন পুরুষের পাশাপাশি মহিলাদের।

0
307

মনিরুল হক, কোচবিহার: বেশ কয়েকদিন থেকে রাসায়নিক সারের সংকট দেখা দিয়েছে, কালোবাজারি হচ্ছিল সারের দোকান গুলোতে। তারপর কৃষকরা সারের দাবিতে এবং কালো বাজারি বন্ধের দাবিতে বিভিন্ন সময় কোচবিহার জেলার বিভিন্নস্থানে সঙ্গে মাথাভাঙ্গাতেও পথ অবরোধ হয়েছে। এমনকি সেই পথ অবরোধে চলছিল লাঠিচার্জ। বেশ কয়েকবার প্রশাসনের সঙ্গে কৃষক সংগঠনগুলির সভা ও হয়েছে। তারপর নড়েচড়ে বসে প্রশাসন।

বর্তমান সময়ে কৃষকদের রবি ফসল চাষে রাসায়নিক সারের ভীষণ প্রয়োজন। চাহিদামত সার না মেলায় সমস্যায় পড়েছেন কৃষকরা। তাই প্রশাসনের তরফ থেকে পর্যাপ্ত না হলেও মোটামুটিভাবে সারের ব্যবস্থা করেছে। আজ ভোরবেলা থেকে মাথাভাঙ্গার বিভিন্ন স্থানে সারসংগ্রহ করতে পুরুষদের পাশাপাশি মহিলাদেরও স্যার নেওয়ার জন্য সূর্য উঠার আগেই সারের দোকানে লাইনে দাঁড়িয়ে পড়েন তারা। সকালবেলায় মাথাভাঙা ১ নং ব্লকের হাজরাহাট বাজারে গিয়ে দেখা গেল এই চিত্র। এর আগে সারসংগ্রহ করতে আর কিনতে কোন দিন মহিলাদের লাইন লক্ষ করা যায়নি। আজকে কিন্তু মহিলাদের লাইন দেখা গেল সার ক্রয় করতে সারের দোকানে। সারের দোকানে পুলিশের উপস্থিতি লক্ষ করা গেছে।

কৃষকদের মধ্যে কল্যাণ রায়, প্রফুল্ল বর্মন, সামিউল মিয়া, রেনু বালা মন্ডল প্রমুখরা বলেন, অনেকদিন থেকে সার পাচ্ছি না, তামাক এর চাড়া বড় হয়ে যাচ্ছে, আলুর গাজা বেরিয়ে যাচ্ছে, সারের অভাবে সেগুলো লাগাতে পারছি না। তাই শুনেছি আজকে সার বিক্রি করবে সার মালিক, তাই যদি পড়ে সার না পাই তাই ভোরবেলা থেকে লাইনে দাঁড়িয়ে পড়েছে।

এ প্রসঙ্গে মাথাভাঙ্গা কৃষি আধিকারিক এর সহ কৃষি অধিকর্তা প্রশাসন ডক্টর শ্যামল কুমার সাহা বলেন, পর্যাপ্ত সার এর ব্যবস্থা করার জন্য প্রশাসনের তরফ থেকে যাবতীয় চেষ্টা চলছে। দু-একদিনের মধ্যে চাষীদের সমস্ত সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে বলে আশা করছি। এখন দেখা যাক কৃষকদের চাহিদা কতটা পূরণ হয় সেই দিক থেকে তাকিয়ে আছে মাথাভাঙার কৃষকরা।