আবারো রাজনৈতিক হিংসায় উত্তপ্ত খেজুরি,বোমা ফেটে মৃত দুই, চাঞ্চল্য।

0
259

নিজস্ব সংবাদদাতা,পূর্ব মেদিনীপুর:- ফের উত্তপ্ত পূর্ব মেদিনীপুরের খেজুরি। এবার এলাকা দখলের লড়াইয়ে রক্তাক্ত কাণ্ড।জানা গিয়েছে তৃণমূলের প্রতিষ্ঠা দিবস পালনের পর বিজেপি কর্মীর বাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ শাসক শিবিরের বিরুদ্ধে। বিজেপির আশ্রিত দুষ্কৃতীদের আক্রমণে তৃণমূলের ৪ কর্মী আহত বলে অভিযোগ তৃণমূলের। অন্যদিকে খেজুরির ২ নম্বর ব্লকের ভাঙ্গনমারিতে বোমা ফেটে মৃত্যু হয়েছে ২ তৃণমূল কর্মীর।ঘটনার সূত্রপাত নতুন বছরের প্রথম দিনে। গত ১ জানুয়ারি তৃণমূল কংগ্রেসে পার্টির প্রতিষ্ঠা দিবসে খেজুরি ২ নম্বর ব্লকের গোড়াহাট, কটকাদেবী চক গ্ৰামে রাতের অন্ধকারে বিজেপি কর্মীদের উপর তাণ্ডব চালানোর অভিযোগ করেছে বিজেপি। তাদের অভিযোগ, বিভিন্ন এলাকা থেকে হার্মাদ বাহিনী নিয়ে কটকাদেবীচক গ্ৰামের বিজেপি কর্মী বুলা গিরিকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। তার পর রাতে লোহার রড, লাঠি দিয়ে তাঁর পা ভেঙে ঝোপের মধ্যে ফেলে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। এর পর উত্তপ্ত হয়ে ওঠে পরিস্থিতি।পরে স্থানীয় মানুষের সহযোগিতায় তাঁকে বাড়ি নিয়ে এসে চিকিৎসা করানো হয়। ঘটনার খবর পেয়ে তাঁর বাড়িতে যান বিজেপি জেলা সভাপতি সুদাম পন্ডিত, জেলা সাধারণ সম্পাদক তাপস কুমার দোলই, বিধায়ক শান্তনু প্রামাণিক প্রমুখ।
তার পর ফের ২ জানুয়ারি তৃণমূলের পঞ্চায়েত শিলাদিত্য বর, অমলেন্দু বর,সঞ্জয় বরদের নেতৃত্বে বেছে বেছে বিজেপি কর্মীদের উপর হামলা হয় বলে অভিযোগ বিজেপির। দেবকুমার মাইতি, অসীম বর,পল্টু বর, রবীন বর, অলকেশ বর- সহ প্রায় ৮ থেকে ১০ জন বিজেপি কর্মীর বাড়ি ভাঙচুর ও লুটপাঠ চালানোর অভিযোগ। এমনকী মহিলাদের সম্মানহানি করার চেষ্টা করা হয় বলে অভিযোগ। পুলিশ দর্শকের ভূমিকা পালন করছে বলে অভিযোগ বিজেপির। জনকা থানা থেকে ঢিল ছোঁড়া দূরত্বে দিনের পর দিন পুলিশের সামনেই পুরো ঘটনা ঘটছে বলে অভিযোগ তাদের।
এর পরেই এইদিন ফের উত্তপ্ত হয় খেজুরি। সূত্রের খবর, খেজুরি ২ নম্বর ব্লকের পশ্চিম ভাঙ্গনমারির ১৯৫ নম্বর বুথে দুষ্কৃতিকারীরা বোমা বাঁধতে গেলে বিস্ফোরণ ঘটে। প্রবল বিস্ফোরণে কেঁপে এলাকার বিজেপি বিধায়ক শান্তনু প্রামাণিকের অভিযোগ, তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা নিজেরা বোমা বাঁধতে গিয়ে এই দুর্ঘটনা ঘটিয়েছে। সূত্রের খবর, এদের মধ্যে চারজন গুরুতর ভাবে আহত হয়েছে। দু’জনের মৃত্যুও হয়েছে বলে খবর।

সূত্রের খবর খেজুরি দক্ষিণের জনকা অঞ্চলের ১৯৫ নম্বর পশ্চিম ভাঙ্গনমারি বুথে বোমা বাঁধার সময় বোমা ফেটে মারা গিয়েছেন অনুপ দাস ও আরও এক যুবক। অন্যদিকে আহতদের নিয়ে যাওয়া হয়েছে তমলুক জেলা হাসপাতালে।

খেজুরির ঘটনার খবর পেয়েছেন। কিন্তু বোমা বাঁধতে গিয়ে নাকি আগে থেকে রাখা বোমা ফেটে দু’ জনের মৃত্যু হয়েছে, তা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন সুপ্রকাশ গিরি। জেলা তৃণমূল যুব সভাপতি জানান, এ নিয়ে পুঙ্খনাপুঙ্খ তদন্ত হবে। উল্লেখ্য, একুশের ভোটের এপিসেন্টার নন্দীগ্রাম বিধানসভা কেন্দ্র থেকে জেতেন শুভেন্দু। ঠিক তার পাশের বিধানসভা কেন্দ্রেও জয়লাভ করেন বিজেপি প্রার্থী শান্তনু প্রামাণিক। ভোটের ফল প্রকাশের পর একাধিকবার রক্তাক্ত হয়েছে এই খেজুরি। অন্যদিকে এই ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে সমগ্র এলাকা জুড়ে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here