বিল্ডিং সংস্কারের নামে ছাত্রছাত্রীদের কাছ থেকে টাকা নেওয়ার অভিযোগের তির প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে,অভিযোগ তুলে স্কুলের সামনে বিক্ষোভ BJP ও অভিভাবকদের মহিষাদল রাজ হাই স্কুলের সামনে।

0
292

নিজস্ব সংবাদদাতা,পূর্ব মেদিনীপুর:- পূর্ব মেদিনীপুরের মহিষাদলের রাজ হাই স্কুলের পুরনো ভবন লাল বিল্ডিং নামে পরিচিত,যা ইতিমধ্যেই হেরিটেজ আওতায় এসেছে বলে জানা গিয়েছে, এই লাল ভবনটির অবস্থা বর্তমানে সঙ্গীন,যেটিকে সংস্কারের দাবি জানিয়ে মহিষাদলের বিধায়ক তিলক কুমার চক্রবর্তীর উদ্যোগে অর্থ সাহায্যের প্রার্থনা করা হয়েছে, সেই অর্থ সাহায্যের নামে জোরপূর্বক ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে টাকা আদায়ের অভিযোগ উঠল মহিষাদল রাজ হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে, অভিযোগ তোলেন অভিভাবকদের একাংশ,এরপরে বিজেপির উদ্যোগে একটি বিক্ষোভ সমাবেশ হয় মহিষাদল রাজ হাই স্কুলের সামনে, তাদের দাবি ছিল জোরপূর্বক যে টাকা ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে নেওয়া হচ্ছে সেই টাকা অবিলম্বে ফেরত দেওয়া হোক, প্রধান শিক্ষক অবৈধভাবে কিভাবে টাকা আদায় করতে পারেন সেই নিয়ে প্রশ্ন চিহ্ন তাদের মুখে।অভিভাবকদের একাংশের অভিযোগ প্রধান শিক্ষক কোন মিটিং না করে কারো সাথে আলোচনা না করে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, যারা টাকা দিতে পারছেন না তাদেরকে বইও প্রদান করা হচ্ছে না স্কুল থেকে এমনটাই অভিযোগ তাদের। ভারতীয় জনতা প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকরা অভিযোগ করেন লাল বিল্ডিং সংস্কার বিধায়ক তহবিল থেকে হওয়ার কথা কিন্তু সেই টাকা বিধায়ক তহবিল থেকে না এসে জোরপূর্বক ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে নেওয়া অবৈধ, সেই জবাব মহিষাদল এর বিধায়ক এবং মহিষাদল রাজ হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষককে দিতে হবে। অপরদিকে প্রধান শিক্ষক এই অভিযোগ সম্পূর্ণ অস্বীকার করে বলেন জোরপূর্বক কোন টাকা আদায় করা হচ্ছে না যিনি পারবেন তিনি শুধু দিচ্ছেন, অপরদিকে মহিষাদলের বিধায়ক তিলক কুমার চক্রবর্তী জানান লাল বিল্ডিং সংস্কারের বিশাল খরচা বিধায়ক তহবিল থেকে দেয়া সম্ভবপর নয়, তহবিল থেকে টাকা দিলে এলাকা সংস্কারের জন্য কোন টাকা অবশিষ্ট থাকবে না, এবং তিনি কোনদিনও বলেনি যে বিধায়ক তহবিল থেকে খরচা হবে, শুধুমাত্র বিধায়কের উদ্যোগে কাজটি সম্পন্ন হচ্ছে বলে জানান তিনি।