উন্নয়নে বাধা!ভিত্তিপ্রস্তর উন্মোচন হওয়ার আগেই ভেঙে ফেলায় শোরগোল হলদিয়া এলাকায়।

0
285

নিজস্ব সংবাদদাতা,পূর্ব মেদিনীপুর:- পূর্ব মেদিনীপুর হলদিয়া শিল্পাঞ্চল বহুদিনের দাবি ছিল সেন্ট্রাল বাস স্ট্যান্ডের।শুক্রবার হলদিয়া পৌরসভার হলদিয়া রিফাইনারি কে জায়গায় হস্তান্তর ও ভিত্তিপ্রস্থর হওয়ার আগেই ভেঙ্গে দিল? তাহলে কি উন্নয়নে বাধা? শিল্পশহর হলদিয়া দীর্ঘদিন আন্তঃজেলা দাবি সেন্ট্রাল বাস স্ট্যান্ড তৈরি করা ২০১৬-২০১৭ সাল নাগাদ বর্তমান রাজ্য সরকার পরিবহন দপ্তর হলদিয়া বন্দরের কাছ থেকে জায়গা নিয়ে কয়েক কোটি টাকা দিয়ে। সেই জায়গা তুলে দিয়েছিলেন হলদিয়া পৌরসভার তৎকালীন চেয়ারম্যান শ্যামল আদকের হাতে। কাজও শুরু হয়েছিল,কিন্তু আন্তর্জাতিক মানের স্টেডিয়াম করতে গেলে টাকা দরকার ।সেজন্যই স্থানীয় হলদিয়া রিফাইনারি বেসরকারি একটি রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা তারা এগিয়ে এলেন এই কাজের জন্য। তারা ইতিমধ্যে এক কোটি টাকার মতো পৌরসভাকে দিয়েছেন বলে জানা গিয়েছে। সেই জায়গা হস্তান্তর হবে হলদিয়া রিফাইনারি আধুনিক বাস স্ট্যান্ড তৈরি করবে। যেখানে একসঙ্গে ৭৫টি বাস দাঁড়াতে পারবে এবং বাসের ড্রাইভার হেলপার এবং যাত্রীরা যারা দূরে যাবেন তারা এসে রাত্রিযাপনও করতে পারবেন এই অত্যাধুনিক বাসস্ট্যান্ডে। এই ধরনের একটি আধুনিক মানের বাস স্ট্যান্ড করার লক্ষ্য নিয়ে হলদিয়া পৌরসভা এবং হলদিয়া রিফাইনারি এগিয়ে ছিলেন কিন্তু আজ উদ্বোধনের কয়েক ঘণ্টা আগেই উদ্বোধনের ফলক ভেঙে দেওয়া হয়েছে। সেখান থেকে কিছুটা দূরে একটি মাটি খুঁড়ে পুঁতে দেওয়া হয়েছে সেই ফলাফল নাম ছিলেন কার? ফলকে নামছিলেন হলদিয়া পৌরসভার চেয়ারম্যান সুধাংশু শেখর মন্ডল নামছিলেন হলদিয়া রিফাইনারি এক্সিকিউটিভ অফিসার মিঃ পার্থ ঘোষ,অভিযোগ রাতের অন্ধকারে ভেঙে দেওয়া হয়েছে এখনই তড়িঘড়ি করে হলদিয়া পৌরসভার পৌর আধিকারিক এবং ইঞ্জিনিয়াররা গেছেন। তদন্ত করে আর কয়েক ঘন্টা পরেই উন্মোচনের কাজ শুরু হবে ।জায়গা হস্তান্তরের কাজ শুরু হবে সে কথা মাথায় রেখেই অডিনারি ফলক তৈরি করে উন্মোচন করা যায় তার জন্যই সব রকমের বন্দোবস্ত করার চেষ্টা করেছেন। এদিকে ভারতীয় জনতা পার্টির রাজ্য সহ সভাপতি প্রদীপ বিজলী কটাক্ষ করে বললেন যে সব দোষ নন্দ ঘোষ ওরা বিজেপি ভূত দেখছে।নিজেদের দলের ঐকাজ করছেন আর দোষ পেতে হয় ভারতীয় জনতা পার্টির নেতৃত্বেদের। আমরা বলবো যে আগামী দিনে সঠিক তদন্ত করে এই সকল অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়ার আবেদন।