বাঁকুড়া জেলার শিল্পাঞ্চলে বিক্ষোভ অব্যাহত,শিল্পক্ষেত্র কার্যত স্তব্ধ তিন হাজার কর্মী আন্দোলনের পথে।।।।

0
229

আবদুল হাই,বাঁকুড়াঃ বাঁকুড়া জেলার শিল্পাঞ্চল নামে খ্যাত মেজিয়া আর এই মেজিয়ায় অবস্থিত দামোদর ভ্যালি কর্পোরেশন এর অন্যতম শাখা মেজিয়া থার্মাল পাওয়ার প্ল্যান্ট। কর্মরত শ্রমিকেরা তাদের দাবি-দাওয়া নিয়ে আন্দোলনে অনড়, সূত্র মারফত খবর ২০১৯ এর থেকেই বিভিন্ন দাবীদাওয়া নিয়ে আন্দোলন চলছে।কয়েক বছর আগে ২০১৭ তে কেন্দ্র থেকে তাদের ৪২% ভাতা বৃদ্ধি করা হয়েছিল কথা মতো সেই ভাতাও দেওয়া হয়েছিল,কিন্তু বিপত্তি বাধে এই ভাতা দেওয়ার পর তাদের অন্যান্য যে প্রাপ্য কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে তা কেটে নেওয়া হয়। এই কারণে একাধিকবার কর্তৃপক্ষের সাথে কর্মী ইউনিয়নের খাতায়-কলমে যুদ্ধ চলে,পরে কর্মবিরতির পথেও হাঁটে কর্মচারীরা কিন্তু এতেও সমাধান মেলেনী। পরবর্তীতে ডি ভি সি কর্তপক্ষ আলোচনার ভিত্তিতে কথা দেয় তাদের যে সমস্ত প্রাপ্য কেটে নেওয়া হয়েছিল তা ২০২০ এর এপ্রিলের মধ্যে মিটিয়ে দেওয়া হবে কিন্তু কথা দিয়েও কথা রাখলোনা কর্তৃপক্ষ এমনটাই দাবী কর্মীদের।ডিবিসি কর্তৃপক্ষের কথা দিয়ে কথা না রাখার জন্য সত্যাগ্রহের পথে হাঁটেন কর্মচারীরা, কিন্তু কর্তৃপক্ষের নির্দেশ মতো সি আই এস এস তাদের ঘাড় ধাক্কা দিয়ে বের করে দেয় এবং ছবি তুলতে গেলে মোবাইল কেড়ে নেওয়া হয়। কর্মী ইউনিয়নের তরফ থেকে হারাধন দত্ত নামে এক আন্দোলনকারী জানান আমাদের দাবি দাবা মেনে না নেওয়ায় আমরা এই আন্দোলনের পথে অগ্রসর হয়েছি পরবর্তীতে আরো বৃহৎ আন্দোলনে আমরা সামিল হবো। তবে সংশ্লিষ্ট সংস্থার জেনারেল ম্যানেজার প্রবীর চাঁদ জানান,এভাবে ডিভিসির বিরুদ্ধে কর্মচারীরা আন্দোলনে যেতে পারে না,তারা যেহেতু কন্ট্রাক্ট স্টাফ তাদের দাবীদাওয়া তারা কন্ট্রাক্টর এর সাথে আলোচনা করুন। এবার প্রশ্ন এটাই কবে অচলাবস্থা কাটে, আদেও কি কাটবে তাও প্রশ্ন চিহ্নের মুখে??

বাইট- হারাধন দত্ত(আন্দোলনকারী)
বাইট-শান্তিময় দাস(আন্দোলনকারী)।