শান্তিপুর পৌরসভার ২১ নম্বর ওয়ার্ডে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী করা হয়েছে উৎপল সাহাকে, ক্ষোভে ফেটে পড়েন ওই ওয়ার্ডের তৃণমূল কংগ্রেসের একাংশের কর্মী-সমর্থকরা।

0
325

নদীয়া, নিজস্ব সংবাদদাতা:- তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী ঘোষণার পরই নদিয়ার বেশ কয়েকটি পৌর এলাকায় বিক্ষোভ দেখা দেয় শুক্রবার রাতে। কোথাও টায়ার জ্বালিয়ে, কোথাও আবার রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখানো হয়। এছাড়া নবনিযুক্ত প্রার্থীর নামে সোশ্যাল মিডিয়ায় চলতে থাকে একাধিক দুর্নীতির পোস্ট। প্রার্থীকে মানসিক ভারসাম্যহীন বলেও আখ্যা দেওয়া হয়েছে।
নদিয়ার শান্তিপুর পৌরসভার ২১ নম্বর ওয়ার্ডে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী করা হয়েছে উৎপল সাহাকে। প্রার্থী তালিকা ঘোষণার পরই ক্ষোভে ফেটে পড়েন ওই ওয়ার্ডের তৃণমূল কংগ্রেসের একাংশের কর্মী-সমর্থকরা।
তাদের দাবি, ওই ওয়ার্ডে উৎপল সাহার পরিবর্তে, বিপ্লব বিশ্বাসকে প্রার্থী করতে হবে। কারণ, বিপ্লব বিশ্বাস একনিষ্ঠ তৃণমূল কর্মী। বিপদে-আপদে সবসময় তিনি সকলের পাশে দাঁড়ান। তাই তাকে প্রার্থী করাতে হবে। এই দাবি তুলে ২১ নম্বর ওয়ার্ডে রাস্তার ওপরে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন।
একই সঙ্গে বীরনগর পৌরসভা এলাকায় একাধিক ওয়ার্ডের প্রার্থী বাছাই নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করে রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন তৃণমূল কংগ্রেসের একাংশের কর্মী সমর্থকরা।
বিক্ষোভকারীদের দাবি, গত ২০২১-এর বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির হয়ে যারা সক্রিয়ভাবে কাজ করেছেন, তাদেরকেই তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী করা হয়েছে। অথচ যারা তৃণমূল কংগ্রেসের একনিষ্ঠ কর্মী তাদেরকেই প্রার্থী তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে, তাই সেই সমস্ত প্রার্থীদের অবিলম্বে বদল করতে হবে।
অন্যদিকে নদিয়ার রাণাঘাট পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডে তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী জ্যোৎস্না শী-র নাম প্রকাশিত হতেই, সোশ্যাল মিডিয়ায় ওই প্রার্থীর নামে মহিলা গোষ্ঠীর নাম করে ৫০ হাজার টাকা তছরুপ ও তাকে মানসিক ভারসাম্যহীন বলে আখ্যা দিয়ে, সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হতে শুরু করেছে।
সবমিলিয়ে নদিয়ার যে ১০টি পৌরসভায় আগামী ২৭ ফেব্রুয়ারী নির্বাচন হতে চলেছে, তার আগে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী ঘোষণা নিয়ে অসন্তোষ দেখা দিয়েছে একাধিক পৌরসভা এলাকায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here