মাথাভাঙ্গা পৌরসভার দখল নিল তৃনমূল কংগ্রেস, খাতা খুলতে পারল না বাম-কং-বিজেপি।

0
278

মনিরুল হক, কোচবিহারঃ একুশের বিধানসভা নির্বাচনের পরে পুরভোটে বাংলার মানুষ আস্থা রাখল মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ওপরে। সারা বাংলার ১০৮ টি পৌরসভার সাথে সাথে কোচবিহার জেলায় ৬টি পৌরসভায় ভোট হওয়ার কথা। কিন্তু দিনহাটা বাদে বাকি ৫টি পৌরসভায় ভোট হয়েছে। আর তাঁর ভোটের ফলাফল ঘটনা হল আজ। এই মুহূর্তে মাথাভাঙ্গা পৌরসভায় জয়ী তৃনমূল কংগ্রেস বোর্ড দখল নিল। মাথাভাঙ্গা পৌরসভায় মোট ১২ ওয়ার্ড রয়েছে। তাঁর মধ্যে দুটি ওয়ার্ডে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতার জয়ী হয়েছে দুটি আসনে। বাকি ১০টি ওয়ার্ডে জয়ী তৃনমূল। মাথাভাঙ্গা পৌরসভায় বাম-কং-বিজেপি খাতা খুলতে পারেন নি।
মাথাভাঙ্গা পৌরসভায় কে কোন ওয়ার্ডে জয়ী এবং কত ভোট পেয়েছেন তা দেখে নিন একনজরে………
১ নং ওয়ার্ড জয়ী তৃনমূল প্রার্থী বিশ্বজিৎ সাহা। তাঁর প্রাপ্ত ভোট ১৭২৯, শুভ দ্বীপ মজুমদার (সিপিআইএম) ৯০, প্রদীপ বসাক (বিজেপি) ১৩০ ভোট।
২ নং ওয়ার্ডে জয়ী তৃনমূল প্রার্থী বিশ্বজিৎ রায়। তাঁর প্রাপ্ত ভোট ১০৫৫, তপন বর্মন (সিপিআইএম + কংগ্রেস) ৪৩, সুভাষ বর্মন (বিজেপি) ১১৬
৩নং ওয়ার্ডে জয়ী তৃনমূল প্রার্থী প্রবীর সরকার। তাঁর প্রাপ্ত ভোট ৮৫৫, সৌমিত্র দাস (রাজু) (সিপিআইএম) ২৮৩, পম্পি ভদ্র (বিজেপি) ১৬২।
৪নং ওয়ার্ডে জয়ী তৃনমূল মাধবী চৌধুরী। তাঁর প্রাপ্ত ভোট ৪১১, ঝিমি সাহা (সিপিআইএম) ৫৪, অর্পিতা শীল (বিজেপি) ৫৬ ভোট।
৫ নং ওয়ার্ডে জয়ী তৃনমূল প্রার্থী চন্দ্রশেখর রায় বসুনিয়া। তাঁর প্রাপ্ত ভোট ৯০৯, কোকিলা সিংহ ( সিপিআইএম) ২২২, মনোরঞ্জন সরকার (বিজেপি) ৩৪।
৬ নং ওয়ার্ডে জয়ী তৃনমূল প্রার্থী লক্ষপতি প্রামাণিক। তাঁর প্রাপ্ত ভোট ৭৬৮, দেবাশীষ দত্ত (সিপিআইএম) ১০৮, মনোজ ঘোষ (বিজেপি) ৬৪।
৭ নং ওয়ার্ডে জয়ী তৃনমূল প্রার্থী শুভময় সরকার। তাঁর প্রাপ্ত ভোট ১৩২১, মানু অধিকারী ( সিপিআইএম) ৩৫, দীলিপ কুমার বিশ্বাস (বিজেপি) ১১৭।
৮ নং ওয়ার্ডে ভোটের আগে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হয়েছেন তৃনমূল প্রার্থী কাকলি ঘোষ।
৯ নং ওয়ার্ডে জয়ী তৃনমূল প্রার্থী কবিতা রায়। তাঁর প্রাপ্ত ভোট ১৩৯২, লক্ষ্মী বর্মন ( সিপিআইএম) ১৫৩, সুমিত্রা বর্মন (বিজেপি) ৩৬৭
১০ নং ওয়ার্ডে ভোটের আগে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হয়েছেন তৃনমূল প্রার্থী উদয় শংকর চক্রবর্তী ।
১১ নং ওয়ার্ডে জয়ী তৃনমূল প্রার্থী বিরেন্দ্র নাথ বর্মন। তাঁর প্রাপ্ত ভোট ৬১৬, মদন কর (সিপিআইএম) ১১৯, দীলিপ কুমার মন্ডল (বিজেপি) ২৬৪।
১২ নং ওয়ার্ডে জয়ী তৃনমূল প্রার্থী অঞ্জলি রানি শা। তাঁর প্রাপ্ত ভোট ১৩০৫, সুদীপ্তা ঘোষ (সিপিআইএম) ৫৩, নমিতা সরকার (বিজেপি) ১০২।
এদিন ভোট শেষে মহকুমা শাসক অচিন্ত্য কুমার হাজরা বলেন, নির্বিঘ্নে ভোট গণনার কাজ শেষ হয়েছে। নির্বাচন কমিশন এর নোটিফিকেশন যেদিন পাওয়া যাবে তার পরই জানা যাবে কবে মাথাভাঙা পৌরসভার বোর্ড গঠন হয়।পাশাপাশি বিরোধী-শূন্য মাথাভাঙ্গা পৌরসভা হওয়াতে ১২ জন তৃণমূলের কাউন্সিলর। এদের মধ্যে কে এখন চেয়ারম্যান এবং ভাইস চেয়ারম্যান হয় তার দিকেই তাকিয়ে আছে মাথাভাঙা শহরবাসী এবং তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী সমর্থকরা। নির্বাচন গণনার ফল প্রকাশের পর এই অবশেষে এই বসন্তের জোড়া ফুল ফুটেছে ১২ টি ওয়ার্ড এই। তাই আজ অগ্রিম বসন্ত উৎসব করে ফেললেন তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী সহ সমস্ত তৃণমূলের কর্মী সমর্থকরা।