বহু প্রতীক্ষিত ঘাটাল মাস্টার প্লানে অর্থ বরাদ্দের বিষয়ে কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারের বঞ্চনার প্রতিবাদে ঘাটালে গণ অনশনের ডাক।

0
316

পশ্চিম মেদিনীপুর, নিজস্ব সংবাদদাতা:- বহু প্রতীক্ষিত পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার ঘাটাল মাস্টার প্লানে অর্থ বরাদ্দের বিষয়ে কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকারের বঞ্চনার প্রতিবাদে আগামী ২৮ শে মার্চ ঘাটাল কলেজ মোড়ে গণ অনশনের ডাক দিল-ঘাটাল মাস্টার প্ল্যান রূপায়ণ সংগ্রাম কমিটি। এই প্রতিবাদকে সামনে রেখে মঙ্গলবার ঘাটালের অন্নপূর্ণা আর্কেডে কমিটির এক সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন কমিটির যুগ্ম সম্পাদক নারায়ণ চন্দ্র নায়ক ও দেবাশীষ মাইতি,কার্যকরী সভাপতি সত্যসাধন চক্রবর্তী ও বিকাশ ধাড়া প্রমুখ।
কমিটির যুগ্ম সম্পাদক নারায়ণ চন্দ্র নায়ক বলেন, পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার ১৩ টি ব্লকের স্থায়ী বন্যা নিয়ন্ত্রণে প্রায় ১৬৫০ বর্গ কিমি এলাকার আনুমানিক কুড়ি লক্ষাধিক মানুষকে বাৎসরিক বন্যার হাত থেকে রেহাই দিতে তৈরি হয়েছিল ‘ঘাটাল মাস্টার প্ল্যান’। গত ১৯৮২ সালে তৎকালীন রাজ্য সেচমন্ত্রী ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করলেও মাস্টার প্ল্যানের কোন কাজ দীর্ঘদিন না হওয়ায় ২০০১ সালে ঘাটাল মহকুমাবাসী আন্দোলন গড়ে তুললে নতুন করে মাস্টার প্ল্যান পুনর্মূল্যায়ন করা হয়। ১৭৪০ কোটি টাকার ওই সংশোধিত প্রকল্পের প্রথম ধাপে কাজ হওয়ার কথা ১২১৪ কোটি ৯২ লক্ষ টাকার।
আশ্চর্যের বিষয় ২০১৫ সালে গঙ্গা বন্যা নিয়ন্ত্রণ কমিশন ও কেন্দ্রীয় সরকারের জলসম্পদ মন্ত্রক স্বীমটিতে অনুমোদন দিলেও আজও কেন্দ্রীয় সরকার কোন অর্থ বরাদ্দ করেনি। সম্প্রতি ইনভেস্টমেন্ট ক্লিয়ারেন্স কমিটির ছাড়পত্র পাওয়াকে কেন্দ্র করে কেন্দ্রের শাসক দল ঘাটালে শোরগোল ফেলে দিয়ে বললেন, টাকা মঞ্জুর হয়ে গেছে। কাজ শুরু হলো বলে। কিন্তু আশ্চর্যের বিষয়, এখনো অর্থ মঞ্জুরতো দূরের কথা, কেন্দ্রীয় ইন্টার মিনিস্টিরিয়াল কমিটির ছাড়পত্র পাওয়া যায়নি।
কমিটির অপর যুগ্ম সম্পাদক দেবাশীষ মাইতি বলেন, দুই মেদিনীপুর জেলার বাসিন্দারা আশা করেছিলেন- এবারকার কেন্দ্রীয় ও রাজ্য বাজেটে এই ব্যাপারে অর্থ বরাদ্দ করা হবে। কিন্তু তা না করায় দুই জেলাবাসী হতাশ হয়েছেন। উভয় সরকারের এই মাস্টার প্ল্যান রূপায়ণের ক্ষেত্রে অর্থ বরাদ্দ না করার প্রতিবাদে এবং অবিলম্বে অর্থ বরাদ্দ করে আগামী বর্ষার পূর্বে শিলাবতী এলাকায় কাজ শুরুর দাবীতে আমরা বাধ্য হয়েই আগামী ২৮ শে মার্চ গণঅনশনের কর্মসূচি গ্রহণ করেছি। এই কর্মসূচিতে সর্বস্তরের ভুক্তভোগী মানুষকে যোগদান করার জন্য আহ্বান জানাচ্ছি।