বাঁকুড়ায় চায়ে পে চর্চায় যোগ দিতে এসে আনিস খানের মৃত্যু ব্যপারে কি বললেন দিলীপ ঘোষ।

0
228

আবদুল হাই, বাঁকুড়াঃ আনিস মারা গেছে। এখন তিনি সবার হয়ে গেছেন। মমতা ব্যানার্জী একসময় লাশ চুরি করতেন। আনিস মারা গেছেন সন্দেহজনকভাবে। বাড়ির লোক আলাদা দাবি করছে। আমরা চাই সঠিক তদন্ত হোক। আসল রহস্য সামনে আসুক। বাঁকুড়ার মালপাড়া মোড়ে আজ সকালে দলীয় চায়ে পে চর্চায় উপস্থিত হয়ে আনিস মৃত্যু কান্ডে এই দাবি করেন বিজেপির সর্বভারতীয় সহ সভাপতি দিলীপ ঘোষ। এদিন সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে দিলীপ ঘোষ বলেন, পুলিশ হোক বা অন্য কেউ হোক দোষীরা শাস্তি পাক। আনিস বিভিন্ন সময় বিভিন্ন দল করেছে। তাই এটা রাজনৈতিক হত্যা হতে পারে। যেহেতু সে মুসলমান তাই এখন সবাই ঝাঁপিয়ে পড়েছে। আমাদের ৫০ জনের বেশি হত্যা হয়েছে তখন কারো মনে হয়নি এটা অমানবিক ঘটনা।
তা সত্বেও আমরা চাই অপরাধীদের শাস্তি হোক। নারদা সারদা তেও সিট গঠন করা হয়েছিল এখানে সিট গঠন করা হয় সত্যকে চাপা দেওয়ার জন্য। মমতা ব্যানার্জী তাই করেছেন। সবাই সিবিআই তদন্ত চায়।

গতকাল কলকাতা মেডিক্যাল কলেজে নতুন চিকিৎসকদের চরক শপথ পাঠ করানো হয়। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক এই শপথ এখনো বাধ্যতামূলক করেনি। তারপরও কলকাতা মেডিক্যাল কলেজে কর্তৃপক্ষকে অন্ধকারে রেখে ওই শপথ পাঠ করানো হয়। যা নিয়ে সার্ভিস ডক্টরস ফোরাম সমালোচনায় সরব হয়েছে। এই প্রসঙ্গে এদিন দিলীপ ঘোষের প্রতিক্রিয়া, মানুষের দায়িত্ববোধ বৃদ্ধির জন্য শপথ করানো হয়। এতে মানুষের দায়বদ্ধতা বাড়ে। ডক্টরস ফোরাম চায়না বলে করা যাবেনা তা তো হয়না। চিকিৎসকদের মনে হয়েছে শপথ গ্রহণের মাধ্যমে তাঁদের দায়বদ্ধতা বাড়বে তাই তাঁরা করেছেন। আপত্তি করা কিছু মানুষের ধর্মে পরিনত হয়েছে।

পুরসভা নির্বাচন ও বিজেপির অন্তর্কলহ প্রসঙ্গে এদিন দিলীপ ঘোষ বলেন, শাসক দল লোককে ভয় দেখাচ্ছে। যাতে ভোটটা ঠিক ভাবে না হয়। আমরা চেষ্টা করব মানুষ যাতে ভোট দিতে পারে এবং ফলাফল ঠিকমতো হয়। বিধানসভা নির্বাচনের পর আমাদের দলের সংগঠনে বিরাট পরিবর্তন করা হয়েছে। তা নিয়ে অনেকে সন্তুষ্ট হয়নি। ধীরে ধীরে তা ঠিক হয়ে যাবে।